হরিশ্চন্দ্রের পাঠ – নীলফামারী

হরিশ্চন্দ্রের পাঠ বা রাজবাড়ি হল খুটামারা ইউনিয়ন বা জলঢাকা থানার অন্তর্গত পাথরের খণ্ডে পূর্ণ একটি প্রাচীন ধ্বংসাবশেষ। এটি প্রায় এক হেক্টর জমির উপর চাড়াল কাটা নদীর দক্ষিণ তীরে একটি উঁচু পাহাড়। পাহাড়ে কালো পাথরের পাঁচটি বড় খণ্ড রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে, পাথর ঢিবির মাটিতে ডুবে যায় এবং আবার ভাসতে থাকে। হরিশচন্দ্র পাঠ বাংলাদেশের নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার খুটামারা ইউনিয়নের একটি গ্রাম। স্থানীয় রাজা হরিশচন্দ্রের নামানুসারে গ্রামের নামকরণ করা হয়েছে। রাজা হরিশ্চন্দ্র দানবীর নামে পরিচিত ছিলেন।

তাঁকে নিয়ে এ অঞ্চলে বহু পালাগান, যাত্রাপালা রচিত হয়েছে। কথিত আছে, রাজা গোপী চন্দ্র রাজা হরিশচন্দ্রের কন্যা অধুনাকে বিয়ে করেছিলেন। তৎকালীন প্রথা অনুযায়ী গোপী চন্দ্র তাঁর ছোট বোন পাদুনাকেও উপহার হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন। এ নিয়ে অনেক গল্প আছে। হরিশচন্দ্র পথ গ্রামের বহু প্রাচীন ধ্বংসাবশেষ এখনও তার স্মৃতি বহন করে। হরিশচন্দ্র শিব মন্দির ৩টি উৎসব এই মন্দিরকে ঘিরে এক বছরে অনেক ধুমধাম করে পালিত হয়।

কিভাবে যাবেন:

নীলফামারী শহর থেকে সড়ক পথে হরিশচন্দ্র পথ বা খুটামারা ইউনিয়ন বা জলঢাকা উপজেলায় যাওয়া যায়।

Leave a Comment