সুনামগঞ্জ জেলা পরিচিতি

সুনামগঞ্জ  জেলা যেটি সিলেট বিভাগের অন্তর্গত। এই জেলার পূর্বে সিলেট জেলা, পশ্চিমে নেত্রকোনা জেলা, উত্তরে ভারতের মেঘালয় রাজ্য এবং দক্ষিণে হবিগঞ্জ জেলা অবস্থিত। সুনামগঞ্জের ইতিহাস অনেক পুরনো। অগণিত কিংবদন্তি এবং ঐতিহাসিক উপাখ্যান এবং তথ্য সমৃদ্ধ। প্রাচীন ইতিহাস থেকে ধারণা করা হয় যে, সুনামগঞ্জ জেলার সমগ্র এলাকা একসময় আসামের কামরূপ বা প্রাগজ্যোতিষপুর রাজ্যের অন্তর্গত ছিল। সুনামগঞ্জের লাউদ পরগণায় এখনও প্রবাদ হিসেবে বলা হয় যে, কামরূপের রাজা ‘ভগদত্ত’ লাউদ পাহাড়ে তার রাজধানী ছিল।

সুনামগঞ্জের নাম ‘সুনামদী’ নামে এক মুঘল সিপাহীর নামানুসারে রাখা হয়েছিল বলে জানা যায়। ‘সুনামদী’ (সুনাম উদ্দিনের স্থানীয় রূপ) মুঘল সেনাবাহিনীর একটি যুদ্ধে তার বীরত্বপূর্ণ কাজের জন্য এখানে সম্রাট সুনামদীকে কিছু জমি দিয়েছিলেন। তার দান করা জমিতে তার নামে সুনামগঞ্জ মার্কেট গড়ে ওঠে। তাই সুনামগঞ্জ নাম ও স্থানের উৎপত্তি বলে ধারণা করা হয়। সুনামগঞ্জ শহরটি সুরমা নদীর তীরে অবস্থিত। সুনামগঞ্জ শহরের নিকটতম আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। বিভাগীয় শহর সিলেট থেকে সুনামগঞ্জ শহরের দূরত্ব ৫১ কিলোমিটার।

১৯৭১ সালের ২৮ এপ্রিল ছাতক উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকসেনাদের সংঘর্ষে ১৩ জন মুক্তিযোদ্ধা নির্যাতিত ও ১১ জন আহত হন। ২৯শে জুলাই জামালগঞ্জ উপজেলার সাচনা বাজারে পাকসেনাদের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের লড়াইয়ে ১ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। ১২ আগস্ট তেলিয়া গ্রামে পাক সেনারা 8 জন বেসামরিক লোককে হত্যা করে। ২৫ আগস্ট দিরাই উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকবাহিনীর যুদ্ধে ৩ জন মুক্তিযোদ্ধা নির্যাতিত ও ২ জন আহত হন। ৩১শে আগস্ট জগন্নাথপুর উপজেলার রাজাকাররা শ্রীরামসী উচ্চ বিদ্যালয়ে শান্তিসভার পক্ষ থেকে স্থানীয় শিক্ষক, কর্মচারী, ইউপি সদস্য, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও সাধারণ মানুষের সমাবেশের আয়োজন করে। রাজাকারের সহায়তায় পাকসেনারা সমাবেশ থেকে ১২৬ জনকে হত্যা করে এবং গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়। এ ছাড়া ৮ সেপ্টেম্বর পাকসেনারা এই উপজেলার রাণীগঞ্জ বাজারে ৩০ জনকে হত্যা এবং ১৫০টি দোকানে অগ্নিসংযোগ করে। সুনামগঞ্জ সার্কিট হাউস ও আহসানমারা ফেরি ঘাট এলাকায় পাকসেনাদের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধের সময় ৩ জন মুক্তিযোদ্ধাকে নির্যাতন করা হয়। মঙ্গলকাটার কৃষ্ণনগরে ৪৮ জন মুক্তিযোদ্ধাকে নির্যাতন করা হয়। ডলুরায় তাদের দাফন করা হয়। ৭ ডিসেম্বর সুনামগঞ্জ জেলা শত্রুমুক্ত হয়।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি রাজশাহী বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment