সিদ্ধেশ্বরী মঠ – মাগুরা

সিদ্ধেশ্বরী মঠ মাগুরা জেলা শহর থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার দূরে সদর উপজেলার আঠারখাদা গ্রামে নবগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত। কোন মঠটি কালিকাতলা শ্মশান নামে পরিচিত ছিল। প্রাচীনকাল থেকেই এই শ্মশানে একটি মঠ এবং মন্ত্রে-মন্ত্রাঙ্কিত পাথরের খন্ডএবং মাতা সিদ্ধেসারীর কালীমূর্তি রয়েছে।

গভীর অরণ্যে পরিপূর্ণ এই স্থানটি ছিল ভিক্ষুদের তপস্যা। সপ্তদশ শতাব্দীতে এবং তারও আগে, পুরাণিতন লোকেরা এখান থেকে নবগঙ্গার ধারে কামাক্ষ্যায় তীর্থযাত্রা করেছিল। সেজন্য সে সময় বহু সাধক ঐ স্থানে সমবেত হন। এক সময় রঙ্গমাচার্য নামে এক সন্ন্যাসী ছিলেন বর্তমান চট্টগ্রাম অঞ্চলের সিদ্ধেশ্বরী মঠের মঠ-স্বামী ।

অনেক পরে যখন ব্রহ্মান্ডগিরি বা ব্রহ্মানন্দগিরি নলডাঙ্গা অধীশ্বর শ্রীমন্ত রায় বা রণবীর খাকে দীক্ষা দেন, তখন থেকে তিনি এই কালিকাপুর সিদ্ধেশরী মঠে এসে বসবাস করতেন। সেই সময় মঠে ভিক্ষুদের জন্য উপযুক্ত কোনো আশ্রয়স্থল ছিল না। সে সময় নলডাঙ্গার আদিশ্বর শ্রীমন্তরা দীক্ষা গুরু ব্রহ্মান্ডগিরির নির্দেশে প্রাক্তন মঠে সাধুদের জন্য একটি আবাসিক আশ্রম নির্মাণ করেন এবং ২৫০ বিঘা জমি বিনামূল্যে দান করেন।

অনেকে নলডাঙ্গা সিদ্ধেশরী মন্দিরের স্থাপত্য ইতিহাসকে মাগুরার সিদ্ধেশরী মন্দিরের ইতিহাসের সাথে গুলিয়ে ফেলেন, আসলে উভয়ের ইতিহাস আলাদা, তবে এটা সত্য যে মাগুরা সিদ্ধেশরী মন্দিরের পটভূমিতে নলডাঙ্গার রাজাদের উল্লেখযোগ্য অবদান ছিল।  মাগুরা সিদ্ধেসরী মন্দিরটি অতি প্রাচীন কালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, যার নির্মাণের সঠিক বছর অজানা। কে এই মন্দিরটি তৈরি করেছিলেন তা জানা যায়নি। এখানে আরেকটি বিষয় উল্লেখ করা দরকার যে নলডাঙ্গা কালিকাপুর এবং মাগুরা কালিকাপুর আলাদা জায়গা। মাগুরা কালিকাপুর সিদ্ধেশ্বরী মন্দির অতি প্রাচীন কালে এবং নলডাঙ্গা কালিকাপুর সিদ্ধেশ্বরী মন্দির মুঘল আমলে প্রতিষ্ঠিত হয়।

কিভাবে যাবেন:

সিদ্ধেশ্বরী মঠ মাগুরা শহর থেকে ৩ কি.মি. উত্তরে আঠারখাদা ​​গ্রামে নবগঙ্গা নদীর তীরে সিদ্ধেশ্বরী মঠ। আপনি টেম্পু, রিকশা এবং ভ্যানযোগে যেতে পারেন।

 

এই ভ্রমণ স্থান সর্ম্পকে আরও  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

 

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি রাজশাহী বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

আপনি রংপুর বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

আপনি খুলনা বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

আপনি সিলেট বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

আপনি ময়মনসিংহ বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

আপনি চট্টগ্রাম বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

আপনি ঢাকা বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

আপনি বরিশাল বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment