শেরপুর জেলা পরিচিতি

শেরপুর জেলা প্রাচীনকালে কামরূপ রাজ্যের অংশ ছিল। মুঘল সম্রাট আকবরের শাসনামলে এই এলাকা “দশকাহনিয়া বাজু” নামে পরিচিত ছিল। আগে শেরপুরে যেতে ব্রহ্মপুত্র নদী পার হতে হতো।

খিয়া পার হওয়ার জন্য দশহান কাদিকে মনোনীত করায় এলাকাটি দশকাহনিয়া নামে পরিচিত হয়।

সপ্তদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে ঈসা খানের বংশধর ভাওয়ালের গাজী দাসকাহনিয়া এলাকা দখল করে।

গাজী রাজবংশের শেষ জমিদার শের আলী গাজীর নামানুসারে দশখানিয়া পরগণার নাম পরিবর্তন করে শেরপুর রাখা হয়।

ওয়ারেন হেস্টিংস থেকে কর্নওয়ালিসের সময়ে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এবং স্থানীয় জমিদারদের বিরুদ্ধে ফকির সন্ন্যাসী বিদ্রোহ সংঘটিত হয়েছিল।

ফকির আন্দোলনের নেতা টিপু শাহ এই এলাকার উপর সার্বভৌমত্ব ঘোষণা করেন এবং গর্জারিপাড়কে রাজধানী হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন।

খোশ মুহাম্মদ চৌধুরীর নেতৃত্বে ১৯০৬, ১৯১৪ এবং ১৯১৭ সালে শেরপুরের কামার চরে কৃষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

১৮৩৮-১৮৪৮ সালে শেরপুরের কমিউনিস্টরা নানকার, টঙ্ক, বাওয়ালি, মহাজানি, ইজারাদারি প্রথার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে।

১৮৯৭ সালে একটি বিধ্বংসী ভূমিকম্প পশ্চিমে ব্রহ্মপুত্রের গতিপথ পরিবর্তন করে, যমুনার সাথে মিলিত হতে বাধ্য করে। এতে অনেক পুরনো ভবনেরও মারাত্মক ক্ষতি হয়।

শেরপুর জেলা ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ১১নং সেক্টরের অধীনে ছিল। নয় মাসে জেলার বর্তমান ৫টি উপজেলার ৩০/৪০টি এলাকায় ছোট-বড় যুদ্ধ হয়েছে।

জগৎপুর গণহত্যা, নাকুগাও ডালু হত্যাকাণ্ড, সোহাগপুর গণহত্যা, নকশী যুদ্ধ ও গণহত্যা, শেরপুর সদর উপজেলার নারায়ণখোলা হত্যাকাণ্ড ও সূর্যদী হত্যাকাণ্ডে মুক্তিযোদ্ধাসহ বহু সাধারণ মানুষ নিহত হয়।

স্বাধীনতা সংগ্রামে অনন্য অবদানের জন্য এই জেলার ১ জন বীর বিক্রম এবং ২ জন বীর খেতাবে ভূষিত হয়েছেন। তারা হলেন শহীদ শাহ মোতাসিম বিল্লাহ খুররম বীর বিক্রম, কমান্ডার জহুরুল হক মুন্সী বীরপ্রতীক ও ডা. মাহমুদুর রহমান বীরপ্রতীক।

অবশেষে ৪ ডিসেম্বর ঝিনাইগাতী, ৬ ডিসেম্বর শ্রীবরদী, ৭ ডিসেম্বর শেরপুর সদর এবং ৮ ডিসেম্বর নকলা মুক্ত হয়।

৭ ডিসেম্বর, ভারতের সুপ্রিম অ্যালাইড কমান্ডার জগজিৎ সিং অরোরা হেলিকপ্টারে করে শহরের শহীদ দারোগ আলী সিটি পার্কে অবতরণ করেন এবং আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। এ

খানে দাঁড়িয়ে তিনি বিবিসি ভয়েস অব আমেরিকা, মস্কো, আকাশবাণীসহ বিভিন্ন রেডিও সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আগামী ৭ দিনের মধ্যে ঢাকাকে মুক্ত করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন। শেরপুর জেলা মানচিত্র থেকে এই জেলার চারপাশে কোন কোন জেলা রয়েছে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি রংপুর বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment