লালঘাট ঝর্ণাধারা – সুনামগঞ্জ

লালঘাট ঝর্ণাধারা আদিবাসী গ্রামাঞ্চলের সীমান্ত ঘেঁষে মেঘালয়ের পাহাড় থেকে বয়ে আসা জলধারা। লালঘাট ঝর্ণাধারা এখন সুনামগঞ্জের সীমান্তবর্তী প্রকৃতিপ্রেমিক ও পর্যটকদের কাছে নতুন গন্তব্য হয়ে উঠছে। তাহিরপুর উপজেলার শ্রী উত্তর ইউনিয়নের বালিয়াঘাট-চরাগাঁও সীমান্তের মধ্যবর্তী মেঘালয় পাহাড় থেকে নেমে আসা ‘লালঘাট ঝর্ণাধারা অবস্থান, সুনামগঞ্জ জেলা শহর থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে, সদর থেকে ১৫ কিলোমিটার (সমুদ্রপথে) দূরে। তাহিরপুর উপজেলা এবং উপজেলার উত্তরে শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়ন সীমান্ত সড়কের কাছে ২২ কিমি (সড়ক) আদিবাসী গ্রাম।

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের ১১৯৬ প্রধান স্তম্ভের জিরো পয়েন্ট থেকে ভারতের মেঘালয় পাহাড়ের সবুজ বুকে প্রবাহিত ‘লালঘাট ঝর্ণাধারা’র স্বচ্ছ সাদা জলরাশি ওপারের পর্বতমালার মুখে পড়েছে। পাহাড়ি স্রোত থেকে জলের স্রোত অবিরাম হারে লালঘাট গ্রামের পশ্চিম দিকে আঁকাবাঁকা স্রোতে নেমে এসে সংসার হাওরের মিষ্টি জলে মিশে যায়।লালঘাট ঝর্ণা ধারার আদিবাসী গ্রামের পূর্ব সীমান্তে হাজং সম্প্রদায়ের প্রায় ৩০ থেকে ৩৫টি ছোট পরিবার বাস করে। এই গ্রামকে বলা হয় সবুজ গ্রাম। জনবসতিটি ফলজ ও ফুলের গাছ দিয়ে পাহাড়ি বনে ঘেরা।

যদিও এটি একটি আদিবাসী গ্রাম, লালঘাটে ১৫০ টিরও বেশি স্থানীয় বাঙালি পরিবারের বাস। এখানে আপনি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের আরেকটি খণ্ড দেখতে পাবেন যেখানে দুই ধর্মের মানুষ, বাঙালি এবং আদিবাসী, সহাবস্থান করে। উভয় ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষ অত্যন্ত অতিথিপরায়ণ। গ্রামবাসীদের সহায়তায় দেখা যায় আরেকটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ‘লালঘাট ঝর্ণাধারা’ এবং এর চারপাশের সুন্দর সীমান্ত প্রকৃতি।গ্রাম ছাড়িয়ে আপনি দেখতে পাবেন ভারতীয় সীমান্তে চুনাপাথরের পাহাড়, মাইলের পর মাইল কাঁটাতারের বেড়া, ভারতীয় লালঘাট বিএসএফ ক্যাম্প, মেঘালয়ের শিলং যাওয়ার হাইওয়েতে চার চাকার গাড়ির বহর।

যাদুকান্ত, বারেকটিলা এবং টেকেরঘাট চুনাপাথর খনি প্রকল্প, শহীদ সিরাজ বীর উত্তম লেক এবং লাকমা ছাড়া পিপাসুরা জেলা সদর বা তাহিরপুর উপজেলা সদর দিয়ে প্রকৃতি দেখতে আসা সমস্ত বিদেশী পর্যটক এবং ভ্রমণকারীরা টেকেরঘাট থেকে মাত্র ৩ কিমি পশ্চিমে লালঘাট উপজাতি দেখতে পারেন। গ্রামের ‘লালঘাট ঝর্ণাধারা’।

উপজেলার লালঘাট উপজাতি গ্রামের মহিলা নেত্রী শ্রী মতি অনুরাধা দেবী হাজং ও লালঘাট গ্রামের হাসান আলী জানান, শত শত বছর ধরে লালঘাট ঝর্ণাধারার অনন্য আকৃতি মানুষের চোখের আড়ালে ছিল। সুনামগঞ্জ-২৮ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন বিজিবি ক্যাপ্টেন লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ পিএসসি বলেন, লালঘাটের ঝর্ণাগুলো সুন্দর। যেহেতু এটি ভারত-বাংলাদেশ জিরো পয়েন্টে রয়েছে, দায়িত্বশীল চরগাঁও বিওপি বিজিবিকে জানিয়েছে যে বাংলাদেশ সীমান্তে অবস্থানরত কোনও দর্শনার্থী বা পর্যটকের সেখানে যেতে কোনও বাধা নেই, তবে সতর্ক থাকুন যাতে কেউ ভারতীয় সীমান্ত অতিক্রম করে অনুপ্রবেশ করতে না পারে।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি রাজশাহী বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment