রামু বৌদ্ধ বিহার-কক্সবাজার

কক্সবাজার রামু বৌদ্ধ বিহার ইতিহাস

ঐতিহাসিকদের দ্বারা রচিত বেশ কয়েকটি রচনা থেকে জানা যায় কক্সবাজার রামু বৌদ্ধ বিহার ইতিহাস । তাঁদের মতে রামুকে “পাং-ওয়া/পানোয়া” হিসাবে বর্ণনা করেছে, যার অর্থ হল হলুদ ফুলের দেশ। রামু এলাকা একসময় আরাকানে প্রাদেশিক রাজধানীর মর্যাদা পেয়েছিলেন।

রামু বৌদ্ধ বিহার আয়তন

রামু বৌদ্ধ বিহার আয়তন ৩৯১.৭১ বর্গ কিলোমিটার।

কক্সবাজার রামু বৌদ্ধ বিহার কখন স্থাপন হয়

রামুর শাসককে রাখাইন রাজারা পাং-ওয়া-জা বলে ডাকত। কথিত আছে যে তৃতীয় ধন্যাবতী যুগের প্রথম রাখাইন রাজা চেন্দা থুরিয়া (৫৮০-৫২৮ খ্রিস্টপূর্ব) এর রাজত্বকালে তথাগত গৌতম বুদ্ধ তাঁর আমন্ত্রণে তাঁর দাস আনন্দকে নিয়ে আরাকানে এসেছিলেন। আরও বলা হয়, গৌতম বুদ্ধের সঙ্গে পাঁচ শতাধিক শিষ্য ছিলেন। গৌতম বুদ্ধ এক ধর্মীয় সম্মেলনে আনন্দকে বলেছিলেন, “হে আনন্দ! ভবিষ্যতে আমার বক্ষ পশ্চিম সমুদ্রের পূর্ব তীরে পর্বতের উপরে স্থাপন করা হবে। তখন একে  “ রাং-উ ” বলা হবে। রাখাইন শব্দের আক্ষরিক অর্থ বক্ষাস্থি। ‘রাং’ অর্থ বক্ষ, ‘উ’ অর্থ বক্ষাস্থি। ভাষাগতভাবে, রাং-উ শব্দটি ধ্বনিগত এবং শব্দার্থগতভাবে রামু শব্দের সাথে মিল রয়েছে।

রামু চৈত্য মৌর্য রাজবংশের তৃতীয় সম্রাট অশোক (খ্রিস্টপূর্ব ২৭৩-২৩২) দ্বারা স্থাপিত ৮৪০০০ ধাতব চৈত্যগুলির মধ্যে একটি। খ্রিস্টপূর্ব ৩০৮ অব্দে নির্মিত ঐতিহাসিক রংকুট বনশ্রম বৌদ্ধ বিহার রামু বৌদ্ধ বিহারটি উপজেলার রাজারকুল ইউনিয়নের পাহাড়ের চূড়ায় একটি মনোরম এলাকায় অবস্থিত।

কক্সবাজার রামু বৌদ্ধ বিহারের গুরুত্ব

কালের বিবর্তনে রামকোটের অস্তিত্ব বিলুপ্ত হয়ে গেলে, শ্রীলঙ্কা থেকে আগত পুরোহিত জগৎ জ্যোতি মহাস্থবির ১৯১৯ খ্রিস্টাব্দে সংস্কারের পর রামকোটের বৌদ্ধ বিহারটি পুনরুদ্ধার করেন। প্রাচীন বৌদ্ধ কাঠামো এবং পুরাকীর্তি সহ একটি বন আশ্রম রয়েছে। প্রতি বছর এখানে বিপুল সংখ্যক তীর্থযাত্রী ও পর্যটকের সমাগম ঘটে।

আশ্রমের পাদদেশে ব্রাজিল, ফ্রান্স, ইতালি সহ বহু দেশের আশীর্বাদপুষ্ট “জগৎ জ্যোতি শিশু সদন” নামে একটি বৌদ্ধ অনাথ আশ্রম রয়েছে। এই আশ্রমটি নির্মাণের সময়, রামুর রাখাইনের শশমান সম্প্রদায়ের দানবীর: সেজারি (খিজারি দালাল) এর প্রয়াত পোয়েজার বংশধরদের সমাধিগুলি ধ্বংস করা হয়েছিল।

আশ্রমে অনেক অনাথ আছে, তারা এখানে টাকা ছাড়াই পড়াশোনা করে। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রামকোটে বসেই রচনা করেন ‘রাজর্ষি’ উপন্যাস। কবিগুরুই প্রথম রামুকে হলুদ ফুলের দেশ হিসেবে বর্ণনা করেন। তবে বর্তমান রামু একসময় বৌদ্ধ সংস্কৃতির প্রধান অবলম্বন হিসেবে রম্যভূমি নামে বিখ্যাত ছিল।

রামু বৌদ্ধ বিহার কিভাবে যাবেন

এটি কক্সবাজার জেলার রামু থানার নীচে রাজারকুলে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার প্রধান সড়কের পূর্ব পাশে পাহাড়ি বনাঞ্চলে অবস্থিত। বৌদ্ধ শিক্ষা ও সংস্কৃতি একসময় এই বিহারের আশেপাশের অঞ্চলে বিকাশ লাভ করেছিল।

রামু বৌদ্ধ বিহার যোগাযোগ ব্যবস্থা

রামু বৌদ্ধ বিহার যোগাযোগ ব্যবস্থায় রয়েছে ঢাকা ও কক্সবাজারের মধ্যে সড়ক এবং আরাকান সড়ক। এছাড়া সব ধরনের যানবাহনে যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। তাই ঢাকা থেকে বাসে করে কক্সবাজার পৌঁছাতে পারেন।

  • হানিফ কোম্পানি, যোগাযোগ ব্যক্তি:- 0341-64170
  • গ্রীন লাইন, যোগাযোগ ব্যক্তি:- 0341-625333
  • সোহাগ পরিবহন, যোগাযোগ ব্যক্তি:- 0341-64361
  • এস আলম পরিবহন, যোগাযোগ:- 0341-62902
  • শাহ বাহাদুর, যোগাযোগ:- 01678064880
  • Sint Marten, যোগাযোগ ব্যক্তি:- 0172652009
  • শ্যামলী পরিবহন, যোগাযোগ:- 0443449934

কক্সবাজার আবাসিক হোটেল

এখানে থাকার ব্যবস্থা খুবই ভালো। কক্সবাজার আবাসিক হোটেল সহ বিভিন্ন মানের অনেক  মোটেল এবং গেস্ট হাউস রয়েছে। এছাড়া এখানে সরকারি ও বেসরকারি পাঁচ তারকা হোটেলও রয়েছে।আপনার সুবিধার জন্য কক্সবাজারের হোটেল এবং গেস্ট হাউস সম্পর্কে নিম্নলিখিত তথ্য দেওয়া হল:

কক্সবাজার আবাসিক হোটেল নাম্বার

১।সেইণ্ট মারটিন রিসোর্ট
প্লটঃ ১০, ব্লকঃ এ, কলাতলি রোড, কক্সবাজার, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬২৮৬২, ৬৪২৭৫

২। হোটেল সী ক্রাউন
মেরিন ড্রাইভ, কলাতলি, নিউ বীচ
মোবাইলঃ +৮৮-০১৮১৭০৮৯৪২০
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬৪৭৯৫, ৬৪৪৭৪

৩। হোটেল সায়মন
হোটেল সায়মন রোড, কক্সবাজার
মোবাইলঃ +৮৮-০১৭১১-০২২৮৮
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬৩৯০০-৪, ৬৩৭০৩-৭

৪। হোটেল সী প্যালেস
কলাতলি রোড, কক্সবাজার
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬৩৬৯২, ৬৩৭৯২, ৬৩৭৯৪, ৬৩৮২৬, ৬৩৮৫৩
মোবাইলঃ +৮৮-০১৭১৪৬৫২২২৭-৮, ০১৯৭৯৪০৫০৫১-২

৫। হোটেল সীগাল
হোটেল মোটেল জোন
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত, কক্সবাজার
ফোনঃ +৮৮-০৩৪১-৬২৪৮০-৯০
মোবাইলঃ +৮৮০১৭৬৬৬৬৬৫৩০, +৮৮০১৭৬৬৬৬৬৫৩

কক্সবাজারে খাবার সুবিধা

কক্সবাজারে খাবার সুবিধা ভাল। এর আশেপাশে অনেক ভালমানের হোটেল রয়েছে সেখানে ভাল মানের খাবার পাবেন। আমরা আশা করি উপরিক্ত হোটেল গুলোতে আপনার পছন্দের খাবার পাবেন।

কক্সবাজার দর্শনীয় স্থান

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত, হিমছড়ি, ইনানী বী, মহেশখালী দ্বীপ, মাথিনের কূপ, মেরিন ড্রাইভ, সোনাদিয়া দ্বীপ, রামু বৌদ্ধ বিহার, দরিয়া নগর, রামু রাবার বাগান, কুতুবদিয়া দ্বীপ, সেন্টমার্টিন দ্বীপ ইত্যাদি।

আরও পড়ুন

Leave a Comment