বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড – হবিগঞ্জ

বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড বাংলাদেশের হবিগঞ্জ জেলার একটি প্রাকৃতিক গ্যাস ক্ষেত্র। এটি আমেরিকান বহুজাতিক শেভরন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। প্রাকৃতিক সমৃদ্ধ হবিগঞ্জে ৩টি গ্যাসক্ষেত্র রয়েছে । ১. রশিদপুর (১৯৬০ সালে আবিষ্কৃত), ২. হবিগঞ্জ (১৯৬৩ সালে আবিষ্কৃত) এবং ১৯৯৮ সালে আবিষ্কৃত বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড নবীগঞ্জ উপজেলার ৩নং ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের নদামপুর, কাকুরা, করিমপুর, পিরিজপুর এলাকায় অবস্থিত। ৪ দীঘলবাক ইউনিয়ন। এটি একটি কেপিআই ক্লাস ইনস্টলেশন। দেশের বৃহত্তম বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্র দৈনিক জাতীয় চাহিদার প্রায় ৪০% সরবরাহ করে। এই ৩টি গ্যাসক্ষেত্রে আনুমানিক ৮ ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের মজুদ রয়েছে। এটি এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম গ্যাসক্ষেত্র যেখানে মোট আনুমানিক গ্যাস মজুদ প্রায় ৫ টিসিএফ, যার মধ্যে পুনরুদ্ধারযোগ্য মজুদ ২.৪ টিসিএফ।

যোগাযোগ:

বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড সড়কপথে ঢাকা থেকে নবীগঞ্জের দূরত্ব ১৮০ কিলোমিটার, বিভাগীয় শহর সিলেট থেকে ৮০ কিলোমিটার এবং হবিগঞ্জ জেলা শহর থেকে নবীগঞ্জের দূরত্ব ২৬ কিলোমিটার। ঢাকার শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশন থেকে রেলপথে দূরত্ব ২০০ কিমি। এখানে ট্রেন সংযোগ না থাকায় প্রথমে শায়েস্তাগঞ্জ এবং পরে নবীগঞ্জের বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড আসতে হয়। নবীগঞ্জের সৈয়দপুর বাজার থেকে মাত্র ৮ কিলোমিটার পশ্চিমে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে পাকা সড়কের পাশে বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রটি অবস্থিত।

এখনো সরাসরি ফ্লাইটের কোনো ব্যবস্থা নেই। তবে আপনি ঢাকা থেকে সিলেটে আকাশপথে এবং সেখান থেকে সরাসরি সড়ক বা রেলপথে শায়েস্তাগঞ্জ এবং সেখান থেকে বিবিয়ানা যেতে পারেন। বাংলাদেশ বিমান, জেট এয়ার, নভো এয়ার, রিজেন্ট এয়ার, ইউনাইটেড এআর- ইত্যাদির বিমান সংস্থার বিমান পরিষেবা ঢাকা থেকে সিলেট পর্যন্ত পাওয়া যায়।

খাদ্য ও পানীয়:

নবীগঞ্জে কোন বিখ্যাত স্থানীয় খাবার নেই। তবে স্থানীয় আনারস, কমলা, সুপারি, লেবু ও কাঠাল বেশ জনপ্রিয়। চা পাতাও আছে। হাওড় এলাকা মাছ ও খামার ভিত্তিক হাঁসের চাষে সমৃদ্ধ। স্থানীয় হোটেল এবং রেস্তোরাঁগুলি দৈনন্দিন ব্যবহারের জন্য সুস্বাদু খাবার সরবরাহ করে। উচ্চ মানের স্থানীয় রেস্তোরাঁ এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশের মধ্যে রয়েছে:হোটেল বাবুল এবং হোটেল শাহজালাল।

থাকার ব্যবস্থা এবং রাত্রি যাপন:

নবীগঞ্জে থাকার জন্য কিছু মাঝারি মানের স্থানীয় হোটেল আছে। সরকারি পর্যায়ে থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থার মধ্যে রয়েছে উপজেলা সরকারি ডাক বাংলো।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি রাজশাহী বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment