বিপিন পার্ক – ময়মনসিংহ

বিপিন পার্ক প্রায় ২০০ বছর আগে নির্মিত এই পার্কটি ময়মনসিংহের প্রাচীনতম পার্ক। ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বরে এই পার্কে বাংলাকে জাতীয় ভাষা করার পক্ষে ছাত্রসভা অনুষ্ঠিত হয়।

১৯৫২ সাল পর্যন্ত এখানে ভাষা আন্দোলনের বিভিন্ন সভা অনুষ্ঠিত হয়। ভাষা আন্দোলন ছাড়াও বিপিন পার্কে পরবর্তীতে পাকিস্তান বিরোধী আন্দোলনের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর পার্কে রাজনৈতিক জমায়েত কমতে থাকে।

২০১৩ সালে, পার্কটি সংস্কার করা হয়েছিল এবং কংগ্রেস জুবিলি রোডে ‘থিম পার্ক’ হিসাবে পুনর্নির্মাণ করা হয়েছিল।বিপিন পার্কে নতুন নির্মিত হয়েছে সুন্দর ফোয়ারা, বিভিন্ন স্থাপনা, ফুলের বাগান, হাঁটার পথ, সীমানা প্রাচীর ও বেঞ্চ। অনেক দর্শনার্থী ব্রক্ষপুত্র নাদ বিধাউত পার্কের সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসেন। এই পার্কটি ময়মনসিংহের একটি ঐতিহাসিক স্থান।

ছায়াময় এলাকা। স্টিলের পাইপের সীমানা প্রাচীর, পাকা স্ল্যাব ওয়াকওয়ে। সুন্দর স্থাপত্যের ছোঁয়া সহ একটি ছোট পার্ক। পাশ দিয়ে বয়ে চলেছে ব্রহ্মপুত্র নদ। এই বিনোদন কেন্দ্রের নাম বিপিন পার্ক, যা ছবির মতোই চোখ ধাঁধানো।

কংগ্রেস জুবিলি রোডের পার্কটির নাম পরিবর্তন করে ‘থিম পার্ক’ করা হয়েছে। পার্কের মাঝখানে বসানো হয়েছে ফোয়ারা। ৯ ফুট উচ্চতার ডলফিন (শুসুক) তিনটি দেশীয় প্রজাতি রয়েছে। দর্শনীয় ফাইবার অপটিক ইনস্টলেশনের সাথে পার্কটিকে একটি নতুন জীবন দেওয়া হয়েছে।

সময়ের সাথে সাথে পার্কটি সব বয়সী মানুষের বিনোদনের জন্য আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে। ছুটির দিনে পরিবার এবং বন্ধুদের সাথে নির্মল আনন্দ উপভোগ করতে সব বয়সের মানুষ এই বিনোদন কেন্দ্রে ভিড় করেন।

এই পার্ক থেকে ব্রহ্মপুত্র নদী দেখা যায়। ব্রহ্মপুত্রের হাওয়া এখানে আসা পর্যটকদের উদ্দীপ্ত করে। নদীতে ভাসমান পালতোলা নৌকা কিংবা নদীর ওপারের চরের মানুষের জীবনযাত্রাও দর্শনার্থীদের মুগ্ধ করে।

স্বাধীনতার আগে ঐতিহ্যবাহী এই পার্কটি রাজনৈতিক সমাবেশের জন্য ব্যবহার করা হতো। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মওলানা ভাসানীর মতো গুরুত্বপূর্ণ নেতায় পূর্ণ ছিল বিপিন পার্ক।

ময়মনসিংহ জেলার ভাষা আন্দোলনও এখান থেকেই শুরু হয়। স্বাধীনতা সংগ্রামসহ সকল আন্দোলনে মিছিল ও জনসমাবেশে ব্যস্ত ছিল এই পার্ক। ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বর মাসে এই বিপিন পার্কে বাংলাকে জাতীয় ভাষা করার পক্ষে ছাত্রসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে মুসলিম ছাত্রলীগ জেলা কমিটির নেতৃত্বে একটি পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়।

মিছিল শেষে বিপিন পার্কে ছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। রফিকউদ্দিন ভূঁইয়ার নেতৃত্বে মিছিল ও ছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। তারপর, ২৫ মার্চ, মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর উর্দুকে জাতীয় ভাষা ঘোষণার প্রতিবাদে বিপিন পার্কে একটি পাবলিক ছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। যেমন, ভাষা আন্দোলন ছাড়া সব আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দু ছিল বিপিন পার্ক।

নিরাপত্তার কারণে সন্ধ্যার পর সংলগ্ন জয়নুল উদ্যানে থাকার কোনো বিকল্প না থাকলেও এ পার্কে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই। ফলে অনেকেই সন্ধ্যার পর পরিবার পরিজন নিয়ে বেড়াতে আসেন।

কিভাবে যাব:

ঢাকা থেকে সড়কপথে বাসে ময়মনসিংহ যেতে হলে মহাখালী বাস স্টেশন থেকে ডাকযোগে এবং বিভিন্ন পরিবহন কোম্পানির লোকাল যানে আড়াই থেকে আড়াই ঘণ্টায় ময়মনসিংহ পৌঁছানো যায়।

মহাখালী ছাড়াও কমলাপুর বিআরটিসি টার্মিনাল থেকে ঢাকা-নেত্রকোনা রুটেও ময়মনসিংহ যাওয়া যায়।

আপনি ট্রেনেও ময়মনসিংহ যেতে পারেন। ঢাকা থেকে তিস্তা এক্সপ্রেস সকাল ৭টা ২০ মিনিটে ময়মনসিংহের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। যাইহোক, অগ্নিবীণা এক্সপ্রেস সকাল ৯.৪০মি. এ ছাড়ে। এগুলো সবই আন্তঃনগর ট্রেন। আপনি মেইল ​​ট্রেনেও আসতে পারেন। পোস্টাল ট্রেনগুলো হল মহুয়া এক্সপ্রেস, দেওয়ানগঞ্জ এক্সপ্রেস, বলাকা এক্সপ্রেস ইত্যাদি।

ময়মনসিংহ শহর থেকে রিকশা, ইজিবাইক বা অটোরিকশায় করে বিপিন পার্কে যাওয়া যায়।

কোথায় অবস্থান করা:

ঢাকা থেকে দূরত্ব কম এবং যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো, আপনি ইচ্ছা করলে একদিনেই সেখানে যেতে পারেন এবং ফিরে আসতে পারেন। তবে আপনি যদি ময়মনসিংহের আরও কিছু দর্শনীয় স্থান দেখতে চান তবে আপনি নিম্নলিখিত হোটেলগুলির মধ্যে একটি বেছে নিতে পারেন। হোটেল মুস্তাফিজ ইন্টারন্যাশনাল, আমির ইন্টারন্যাশনাল, হোটেল হেরা, হোটেল হোটেল সিলভার ক্যাসেল বা হোটেল খান ইন্টারন্যাশনাল। এছাড়াও রয়েছে নিরালা রেস্ট হাউস, হোটেল ঈশা খান, হোটেল উত্তরা, তাজমহল ইত্যাদি।

কোথায় খাবেন:

ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব ক্যান্টিনের দে হান পোলাও বেশ জনপ্রিয়। আর আছে হোটেল ধানসিন্ডি ও হোটেল সারিন্দা। ময়মনসিংহ শহরে এসে বিখ্যাত মুকুল ভাই চায়ের দোকানে না গিয়ে কি করে! মুকুল ভাইয়ের চা, সিঙ্গারা আর পুরি খুব সুস্বাদু। কৃষ্ণ কেবিনের নাস্তাও আছে। ময়মনসিংহে এর স্বাদ নিতে ভুলবেন না।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি খুলনা বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment