বালিয়া মসজিদ – ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁও জেলা শহর থেকে উত্তরে পঞ্চগড় মহাসড়ক ধরে ভুল্লিবাজার আরও ১০ কিলোমিটার যাবার পর বাজার থেকে তিন কিলোমিটার ডানে বালিয়া গ্রাম। আর একটু সামনে গেলে  মুঘল স্থাপত্যে সমৃদ্ধ গাছে ঘেরা লাল দালান বালিয়া মসজিদ ।

মসজিদে কোন স্তম্ভ নেই। এটি একটি প্ল্যাটফর্মের ৪২ ইঞ্চি প্রশস্ত দেয়ালে দাঁড়িয়ে আছে। এই প্রস্থ মসজিদের গোড়া পর্যন্ত চলতে থাকে। প্ল্যাটফর্মের দেয়ালগুলি নীচে ৭৪ ইঞ্চি প্রশস্ত। এটা আরো ভূগর্ভস্থ। আয়তাকার এই মসজিদটি উত্তর-দক্ষিণে ৬৯ ফুট ২ ইঞ্চি এবং পূর্ব-পশ্চিমে ৬২ ফুট ৬ ইঞ্চি লম্বা। মূল ভবনটি পূর্ব থেকে পশ্চিমে ২৫ ফুট ১১ ইঞ্চি চওড়া। প্ল্যাটফর্ম থেকে ছাদ পর্যন্ত উচ্চতা ১৭ ফুট। মসজিদে চুন মর্টার সহ হাতে তৈরি ইট ব্যবহার করা হয়েছে।

লাল ইট কেটে তৈরি করা হয়েছে নানা নকশা। শোভাময় নকশা হল ঘণ্টা, কলস বাটি, আমলকি এবং পদ্মের আকৃতি। যেগুলো খুব নিপুণভাবে বিভিন্ন জায়গায় স্থাপন করা হয়েছে। দেয়ালে কোনো আস্তরণ নেই। পুরোনো কাঠামোর সঙ্গে মিল রেখে উপরে তিনটি উঁচু গম্বুজ তৈরি করা হয়েছে। মসজিদের প্রধান প্রবেশদ্বার ২১ ফুট লম্বা এবং ৯ ফুট চওড়া। বিশাল সদর দরজা এই মসজিদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। আপনি এই অঞ্চলে এমন একটিও গেট বিশিষ্ট মসজিদ দেখতে পাবেন না।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, পাইগুড়ি অঞ্চলের মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ণের অধীনে শালবাড়ি পরগণার স্থানীয় বালিয়া জমিদারের কন্যা গুলমতি চৌধুরানী এই মসজিদের নির্মাতা বলে জানা যায়। তবে সব কার্যক্রম তার স্বামী মেহের বক্স চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে ছিল। তার পূর্বপুরুষরা মুঘলদের সাথে এই এলাকায় এসেছিলেন বলে জানা যায়। গুলমতি চৌধুরানী তার স্বামীর আগ্রহে ১৮৬০ সালের দিকে মসজিদ নির্মাণ শুরু করেন। এর জন্য দিল্লি থেকে কারিগরও আনা হয়েছিল। ১৯০৫ সালে মেহের বক্স চৌধুরীর মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বিভিন্ন পর্যায়ে মসজিদের কাজ চলতে থাকে। এরপর বিভিন্ন কারণে মসজিদের কাজ আর চলতে পারেনি।

সময়ের সাথে সাথে, এই মসজিদটি ধ্বংস হয়ে যায় এবং ২০০৫ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত পুরানো স্থাপত্য অনুসারে মসজিদটি পুনর্নির্মাণ করা হয়। ব্যক্তিগত প্রচেষ্টায় এত পুরনো মসজিদ পুনর্নির্মাণ এদেশে বিরল। প্রতিদিন দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসেন এই সুন্দর মসজিদটি দেখতে। আরও কিছু তথ্য – বালিয়ার কাছে মালানী গ্রামে সাঁওতাল সম্প্রদায়ের বসবাস। তাদের বৈচিত্র্যময় জীবনধারা মুগ্ধ করবে। শীতকালে সাঁওতালদের অনেক উৎসব থাকে। শীতকালে ঠাকুরগাঁওয়ের আরেক আকর্ষণ কাঞ্চনজংঘা দর্শন। আকাশ পরিষ্কার হলে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বুড়ির বাঁধ এলাকা থেকে খালি চোখে কাঞ্চনজংঘা দেখা যায়।

কিভাবে যাবেন:

ঘণ্টাখানেক পর পর শ্যামলীর কোচ গাবতলী ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁওয়ে বাস যায়। ঠাকুরগাঁও পৌঁছাতে প্রায় ১০ ঘন্টা সময় লাগে। এ ছাড়া দিনাজপুরগামী আন্তঃনগর ট্রেন একতা, র‌্যাপিড ট্রেন ও নীলসাগর এক্সপ্রেস সৈয়দপুর যেতে পারে। সেখান থেকে বাসে ঠাকুরগাঁও। পুরাতন বাস স্টপ থেকে পঞ্চগড় বাসে বা অটোরিকশায় ভুল্লি বাজার থেকে বালিয়া যাওয়া যায়।

Leave a Comment