বার আউলিয়া মাজার-পঞ্চগড়

পঞ্চগড় জেলার বেশ কিছু মাজার এই শহরের মানুষের ধর্মীয় অনুভূতিকে সজীব ও পবিত্র করে তোলে। বিখ্যাত সূফী ও পীর দরবেশদের পবিত্র চরণ এ অঞ্চলের ধূলিময় মাটিকে আশীর্বাদ করেছিল। অনেক পরে, এই অঞ্চলে ব্যাপক ধর্মীয় প্রচার ঘটে। তবে ব্যতিক্রম শুধু পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার বার আউলিয়া মাজার। বার আউলিয়ার মাজার রয়ে গেছে ‘বার আউলিয়া’ গ্রামে। তবে তাদের পরিচয় জানা যায়নি । বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, এই বার আউলিয়া সুদূর পারস্য, ইয়েমেন ও আরবের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসে ইসলাম প্রচারের জন্য চট্টগ্রাম শহরে আশ্রয় নেন। হেমায়েত আলী শাহ (রহ.) বারো আলীর নেতা। তার নেতৃত্বে আউলিয়ারা টাঙ্গন নদীর তীরে বা স্থলপথে আটোয়ারির স্থানে স্থায়ীভাবে বসতি স্থাপন করতে শুরু করে। তাদের সকলেরই আধ্যাত্মিক ক্ষমতা ছিল। হিন্দু ব্রাহ্মণ রাজাদের কঠোর শাসনে নিপীড়িত নিম্নবর্ণের হিন্দুরা বার আউলিয়ার আদেশে আকৃষ্ট হয়ে ইসলামের পতাকাতলে ঝাঁপিয়ে পড়ে।

সম্ভবত সপ্তদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে তারা এ অঞ্চলে এসেছিল। প্রত্নতাত্ত্বিকরা বিশ্বাস করেন যে ১৯৯০-৯১ সালের দিকে অভয়ারণ্যের সংস্কারের সময় পাওয়া প্রাচীন সমতল পাথরগুলি শত শত বছরের পুরনো। গুজব আছে যে এই ধরনের পাথরগুলি মূলত দিল্লির সম্রাট শেরশাহের শাসনামলে ব্যবহৃত হত। অন্যান্য অঞ্চলের মতো এ অঞ্চলও হিন্দু রাজা বা জমিদারদের অধীনে ছিল। এই মৌজাটি রানীগঞ্জের জমিদারের অধীনে ছিল। জমিদারের মৃত্যুর পর রানী রাশমনি এই রাজ্য জমিদারীকে দেবতার রাজ্য হিসেবে ঘোষণা করেন এবং কানাইলাল দলুইগং জমিদার বার আউলিয়া আলীর নামে ৪৭.৭৯ একর জমি দান করেন। এটি ১৯৪০ সালে রেকর্ড করা হয়েছিল। বসরাত আলী শাহকে মাজারের সেবা হিসাবে দেখানো হয়েছিল।

বার আউলিয়াদের মৃত্যু এবং তাদের সমাধির আশেপাশে তীর্থযাত্রার সূচনার সঠিক ইতিহাস জানা যায়নি। যাইহোক, এটা স্পষ্ট যে আউলিয়ারা অকৃতদার এবং তাদের মৃত্যুর পরে, মাজারের ব্যবস্থাপনা ও তত্ত্বাবধান ধীরে ধীরে ভক্তদের মধ্য থেকে হস্তান্তর করা হয়েছিল। পরবর্তীতে মাজারের বিশাল সম্পদ রাজী খাদেমদের অধীনে প্রভাবশালী ভক্তদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। ১৯৯০ সাল পর্যন্ত খাদেম গ্রুপের লোকজন মাজারের দেখভাল ও জমি দখল করে রেখেছে। বসরাত আলী শাহের মৃত্যুর পর তার পুত্র সুলতান আলী শাহ ও হায়দার আলী শাহ মাজারের তত্ত্বাবধান করেন। পরবর্তীতে ১৯৫৪ থেকে ১৯৬৪ সাল পর্যন্ত জমি রেজিস্ট্রেশন শুরু হলে সুলতান আলী ৪৭.৭৯ একর জমি নিজের নামে রেজিস্ট্রি করে মাজারের জমি বিক্রি শুরু করেন।

জানা যায়, মূল মাজারের আশপাশের এলাকা ছিল ঘন জঙ্গলে পরিপূর্ণ। এই বনে বাঘ, ভাল্লুক এবং বন্য শুকর সহ অনেক বন্য প্রাণী বাস করত। মাজারের উপর একটি বাড়ি ছিল। ওরশের আগের দিন মাটি দিয়ে মুছে দেওয়া হয়েছিল। ১৯৯০ এর দশক পর্যন্ত একটি টিনের চালা ছিল। কথিত আছে যে ২টি  বাঘ এবং ২টি  সাপ সর্বদা মন্দিরটি পাহারা দিত। মাজারের পাশে একটা কাঠের বাক্স ছিল। ভক্তরা এই বাক্সে টাকা রাখেন। কেউ টাকা চুরি করতে বাক্সের কাছে গেলে দুটি সাপ দেখা দেয়। আর বাঘ বসত দুই ঘরের শরের ওপর । কখনো দেখা হতো কখনো দেখা হতো না। কিন্তু খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে বাঘ দেখা যেত। তাই মাজারে কেউ ভয় পায়নি। তবে খাদেম বসরাত আলী শাহের স্ত্রী সপ্তাহে একবার মাটি দিয়ে মুছতে যান। কিন্তু বাঘ এই মহিলার কিছুই করেনি। পরিবর্তে, মহিলাটি বাঘের কাছে গিয়ে হাত দিয়ে শুইয়ে দিত। বাঘরা নেমে যেত। বর্তমানে এত গভীর বন নেই। তাই বাঘ বা সাপ নেই।

১৯৯০ সালের দিকে পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক আবুল বাশার আহমদ চৌধুরী একদিন একটি জিপে করে বার আউলিয়া মাজারের রাস্তা দিয়ে যান। হঠাৎ মাজারের সামনের সড়কে জেলা প্রশাসকের গাড়ি থামে। অনেক চেষ্টার পরও গাড়ির ইঞ্জিন চালু না হয়, স্থানীয়দের জিজ্ঞাসা করুন। জানতে পারেন বার আউলিয়া মাজার শরীফ পশ্চিম পাশে। অবিলম্বে তিনি অযু করলেন এবং মাজার জিয়ারত করলেন এবং সমস্ত সীমালংঘনের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করলেন। মাজার জিয়ারত শেষে কোনো সমস্যা ছাড়াই গাড়ি চলতে শুরু করে। ওই রাতেই স্বপ্নে জেলা প্রশাসক বার আউলিয়ার আলীর কাছ থেকে মাজারের উন্নয়নের নির্দেশনা পান। পরদিন সকালে তিনি আবার মাজার জিয়ারত করতে আসেন। একই সঙ্গে তিনি তার দুই অসুস্থ ছেলের জন্য শপথ নেন এবং মাজারের উন্নয়নে এগিয়ে আসেন।

তিনি স্বেচ্ছায় মাজারের উন্নয়নে অর্থ সংগ্রহের জন্য সর্বস্তরের মানুষের কাছে আবেদন জানিয়েছেন। জেলা প্রশাসক প্রথমে বার আউলিয়ার সরদার হেমায়েত আলী শাহ ও নিয়ামত উল্লাহ শাহের মাজারের একটি পাকা দালান নির্মাণের কাজ শুরু করেন। উভয়েরই মাজার রয়েছে। যমজ কবর নামেও পরিচিত। তখন নলপুখরি গ্রামের মো. খলিলুর রহমান ও এর দেয়াল নির্মাণ করেন এভাবেই সরকার ও ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের সহযোগিতায় একটি পাকা মসজিদ ও এতিমখানা নির্মাণ করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৯২ সালে সাবেক আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী মরহুম মির্জা গোলাম হাফিজ মন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার পর মাজারটির উন্নয়নের তত্ত্বাবধান করেন। প্রথমে তিনি জমির বিষয়টি মিমাংসা করার পর জমিকে তিন ভাগে ভাগ করেন। পরে তিনি সেখানে বৈদ্যুতিক সংযোগের ব্যবস্থা করেন। তিনি মাজার তত্ত্বাবধানের জন্য মির্জা গোলাম হাফিজ জেলা প্রশাসককে চেয়ারম্যান করে একটি কমিটি গঠন করেন।

আউলিয়া মাজার শরীফের উরস মোবারক দীর্ঘদিন ধরে প্রতি বছর বাংলা সনে বৈশাখ মাসের শেষ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। এদিন ওয়াজ মাহফিল, কোরআন তেলাওয়াত ও তোবারক বিতরণ করা হয়। এই দিনে বিভিন্ন জেলা থেকে প্রায় হাজার মানুষ মাজার জিয়ারত করে। গরু, ছাগল, মুরগি, চাল ও টাকা দান করেন। লক্ষণীয় যে এই দিনে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সকলেই মাজারে আসেন এবং সকল ভেদাভেদ ভুলে যান। বৈশাখের শেষ বৃহস্পতিবার উৎসবে পরিণত হয়। সেই ভোজ যেন ঈশ্বরের কাছে চাওয়ার ভোজ। সর্বস্তরের নারী-পুরুষ পবিত্র ভূমিতে এসে তাদের মানত পূরণ করেন।

এই বারো আউলিয়ার নাম তাম্রফলকে খোদাই করা ছিল। কথিত আছে, কানাইলাল দালুইগং মাজারের জমি দান করার সময় জমির মালিক সকলের পক্ষে তাম্রশাসনে দানের দলিল লিখেছিলেন। সেই তাম্রফলক হারিয়ে গেলেও আলীর নাম হারায়নি। বার জন আউলিয়া হলেন-হেমায়েত আলী শাহ্‌ (র.), নিয়ামত উল্লাহ শাহ্‌ (র.),শেখ গরীবুল্লাহ্‌ (র.) আমজাদ আলী মোল্লা, কেরামত আলী শাহ্‌ (র.), আজহার আলী শাহ্‌ (র.), হাকিম আলী শাহ্‌ (র.), ফরিজউদ্দীন আখতার(র.), মনসুর আলী শাহ্‌ (র.), শাহ্‌ মোক্তার আলী(র.),  মমিনুল শাহ্‌ (র.),শাহ্‌ অলিউল্লাহ (র.)

Leave a Comment