বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী – কুমিল্লা

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী ইতিহাস

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী একটি বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত ব্যক্তিদের জন্য প্রশিক্ষণ একাডেমি।

এখানে বেড়াতে আসা অনেক পর্যটক বার্ড ইনস্টিটিউটের নাম শুনলেই মনে করেন এখানে অনেক পাখি ।

এখানে ছায়া আর মমতায় ঘেরা রাস্তা। দুই পাশে নানা রকমের রঙিন ফুল ও ফলের বাগান। পাখিদের কিচিরমিচির আর ফুলের গন্ধে মুখরিত হয়ে ওঠে চারপাশ।

সবুজ ভেদ করে সাদা কালো উঁকি দেয়। ড. আখতার হামিদ খান এটি নির্মান করেন।

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী পরিচ্ছন্ন প্রতিষ্ঠান, এত সুন্দর শৈল্পিক অবকাঠামো, এক ভবন থেকে অন্য ভবনে যাওয়ার জন্য আচ্ছাদিত হাঁটার পথ, তার পাশে নানা রঙের ফুলের বাগান কার না চোখে পড়ে।

একাডেমির পশ্চিমে কুমিল্লায় বিজিবি সদর দপ্তর,  শালবন বিহার,  দক্ষিণে কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজ,  আর সদ্য প্রতিষ্ঠিত কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়,  পূর্বে কুমিল্লা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এবং উত্তরে কুমিল্লা সেনানিবাস।

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী কখন প্রতিষ্ঠিত হয়

১৯৫৯ সালে প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠানটি গ্রামীণ জনগণের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে এবং গ্রামীণ উন্নয়নের ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ, গবেষণা এবং বাস্তব গবেষণার মাধ্যমে গ্রামীণ দারিদ্র্য বিমোচনে নিরলসভাবে অবদান রেখেছে।এ সময় একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন প্রখ্যাত পল্লী উন্নয়ন গবেষক, দার্শনিক ও সমাজসেবক ড. আকতার হামিদ খান।

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী দেখার মতো কি আছে 

সুন্দর দৃষ্টিনন্দন বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী দেখার মতো কি আছে তা আমরা জানবো।

আমার দৃষ্টিতে এটি একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ও পরিচ্ছন্ন প্রতিষ্ঠান। বার্ড ক্যাম্পাসে একটি ব্যাংক,ফরেস্ট কটেজ,  গেস্ট হাউস,  পোস্ট অফিস, প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্র, ভিআইপি স্যুট, ৩৫০ জনের থাকার জন্য রানী কটেজ সহ ৭টি হোস্টেল রয়েছে।

শিশুদের জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে রয়েছে শিশু বিতান বার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়, সস্তা বিনোদনের জন্য ভাল মানের একটি বড় পরিসর সহ ২টি ক্যাফেটেরিয়া,  খেলাধুলা সহ বিনোদনের জন্য খেলাধুলা ও বিনোদন কেন্দ্র রয়েছে, এখানে একটি গম্বুজ বিশিষ্ট একটি মসজিদ এবং একটি আধুনিক গ্রন্থাগার রয়েছে।

বার্ডের মূল ফটকে প্রবেশ করলেই দেখতে পাবেন সুসজ্জিত মসজিদ।

এই ক্যাম্পাসে ১৪৫টি বিরল প্রজাতির ২৫৫৮২টি গাছ রয়েছে। এর মধ্যে ফুলের গাছের ৪৩টি সংখ্যা ১২৮৬টি, ৬১ ধরনের ফল গাছের সংখ্যা ১১৪৪৯টি এবং বনজ গাছের ৪১টি সংখ্যা ১২৮৪৭টি।

স্টার আপেল ৬১ ধরনের ফল গাছের একটি। মসজিদ ভবনে এই আশ্চর্যজনক ফলের গাছ আছে।

এই গাছের বৈশিষ্ট্য হল পাতার দুই পিঠে দুটি রং থাকে। এটি দেশ-বিদেশের সরকারি ও বেসরকারি বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ থেকে বার্ডে আসা ইন্টার্নদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে।

শান্ত সন্ধ্যায়, শেয়ালের জলের পাইপের ডাক পর্যটক/শিক্ষার্থী/অতিথি এবং ক্যাম্পাসবাসীদের জাগিয়ে তোলে, তবে ভোরবেলা তারা বিভিন্ন পাখির কিচিরমিচির শব্দে জেগে ওঠে।

সূর্যের রশ্মিতে জ্বলজ্বল করা সবুজ পাতার দৃশ্য মনের প্রখর দাগ কেটে গেলে বোঝা যায় না।

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

এর কর্মসূচীর মধ্যে অগ্রাধিকার প্রাপ্ত বিষয়গুলো হলো :

১. গ্রামে টেকসই সংগঠন সৃষ্টি

২. ব্যক্তিগত ও সমষ্টিগত পুঁজি সৃষ্টি

৩. উন্নত কৃষি প্রযুক্তি সম্প্রসারণ

৪. অবকাঠামোগত উন্নয়ন

৫. গ্রামের সর্বস্তরের জনগণের সহযোগিতায় একটি সংগঠিত গ্রাম সমাজ সৃষ্টি

৬. স্বাস্থ্য, শিক্ষা, পরিবার পরিকল্পনা, মহিলা শিক্ষাসহ সমাজ উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের প্রসার

৭. অকৃষি খাতে ভূমিহীন শ্রমিকদের জন্য কর্মসংস্থান

৮. সরকারের সেবা গ্রামে পৌছানোর কার্যকর পদ্ধতি উদ্ভাবন

৯. গ্রামের সাথে বহির্বিশ্বের কার্যকর যোগাযোগ স্থাপন ।

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী কোথায় অবস্থিত

এখন আমরা জানবো বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী কোথায় অবস্থিত।কুমিল্লা শহর থেকে ১০ কিলোমিটার এবং কুমিল্লা নন্দনপুর বাইপাস থেকে ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের লালমাই পাহাড়ের পাদদেশে কোটবাড়ির মনোরম সবুজ গ্রামীণ এলাকায় ১৫৬ হেক্টর জমির উপর বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী অবস্থিত।

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী কিভাবে যাবেন

ট্রেনে আপনি ঢাকা, চাঁদপুর, সিলেট, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী ইত্যাদি থেকে কুমিল্লা স্টেশনে আসতে পারেন, কুমিল্লা থেকে নেমে অটোরিকশা বা রিকশায় করে কান্দিরপাড় আসতে পারেন, তারপর নিচের বর্ণনা অনুযায়ী যান ।

ঢাকা থেকে কুমিল্লা – ঢাকা যাত্রাবাড়ী থেকে আপনি এশিয়া ট্রান্সপোর্ট, এশিয়া লাইন বা তিশা ট্রান্সপোর্ট (এসি এবং নন-এসি উভয়) কমলাপুর থেকে রয়্যাল কোচে ভ্রমণ করতে পারেন।

রাজকীয় কোচ খুব আরামদায়ক কিন্তু ধীর। মেঘনা সেতু, বুড়িগঙ্গা সেতু, দাউদকান্দি সেতু এবং দুই পাশের সড়কে সকালের সূর্যের আলো দেখতে পাবেন।

আপনার প্রকৃতি প্রেমিক যোগ করার জন্য অন্য কিছু প্রয়োজন হবে না। কুমিল্লা সেনানিবাসে এসে নেমে যেতে পারেন অথবা কোটবাড়ি বিশ্বরোডে যেতে পারেন। এটি ২ থেকে ২.৫ ঘন্টা সময় নেয়।

চট্টগ্রাম, কুমিল্লা থেকে – সৌদিয়া ট্রান্সপোর্ট (এসি, নন-এসি) কুমিল্লার পদুয়া বাজার থেকে এসে বিশ্বরোড হয়ে জাঙ্গালিয়া যায়, এটি ২.৫ থেকে ৩ ঘন্টা সময় নেয়।

চট্টগ্রামের মানুষের কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সড়কের চারপাশের প্রাকৃতিক দৃশ্য বর্ণনা করার দরকার নেই, এই সড়কের দুই পাশই সুন্দর। যাই হোক, জাঙ্গালিয়া নেমে টমছমব্রিজ অটোতে যেতে পারেন।

কুমিল্লা শহর থেকে কোটবাড়ি – কুমিল্লা শহর থেকে ১০ কিলোমিটার এবং কুমিল্লা বাইপাস নন্দনপুর থেকে ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কোটবাড়ি লালমাই এবং শালবন পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত।

কুমিল্লা টমছমব্রিজ চৌমুহনীর পশ্চিম পাশের সিএনজি স্টেশন হয়ে কোটবাড়ি যাওয়া যায়।

সিএনজি থেকে নেমেই দেখতে পাবেন তাক লাগানো বার্ডের গেট। যাইহোক, কারও রেফারেন্স ছাড়া বার্ড প্রবেশের অনুমতি নেই। তবে জাতীয় দিবসে এটি সবার জন্য উন্মুক্ত।

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী গুগল ম্যাপ

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী গুগল ম্যাপ দেখতে এই লিংকে কিক্লি করুন।

কোথায় খাবেন

কুমিল্লায় উন্নতমানের দুইটি ক্যাফেটেরিয়া রয়েছে যা বার্ডের ভিতরে। এছাড়া কুমিল্লা শহরে ইরিশ হিল হাইওয়ে হোটেল, আনোয়ার হোটেল, ঝাল বাংলা রেস্তোরা, সৌদিয়া হোটেল, উজান হাইওয়ে, হোটেল ময়নামতি, সাকিব হোটেল ও লিজা হোটেল সহ ভালমানের রেস্তোরা রয়েছে।

কুমিল্লার মনোহরপুরের মাতৃভাণ্ডারের বিখ্যাত রসমালাই ও রসগোল্লা, ভগবতীর পেড়া, মিঠাই এর মালাই চপ ও মাতৃভূমির মালাইকারি খেয়ে দেখতে পারেন।

কোথায় থাকবেন

কুমিল্লায় থাবার ব্যবস্থা অনেক ভাল। কান্দিরপাড়, আমানিয়া রেস্ট হাউজ, শাসনগাছা ও ষ্টেশন রোডে হোটেল ভিক্টোরিয়া, হোটেল নূর, মাসুম রেস্ট হাউজ, হোটেল ড্রিম ল্যান্ড, হোটেল মেলোডি, হোটেল সোনালি এগুলো ছাড়াও আরও বিভিন্ন মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে।

কুমিল্লার দর্শনীয় স্থান

কুমিল্লার দর্শনীয় স্থান এর উল্লেখ্যযোগ্যগুলো নিচে দেওয়া হলো।

আরও পড়ুন

রাজশাহী বিভাগ ভ্রমণ

ঢাকা বিভাগ ভ্রমণ

রংপুর বিভাগ ভ্রমণ

ময়মনসিংহ বিভাগ ভ্রমণ

সিলেট বিভাগ ভ্রমণ

খুলনা বিভাগ ভ্রমণ

বরিশাল বিভাগ ভ্রমণ

চট্টগ্রাম বিভাগ ভ্রমণ

2 thoughts on “বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী – কুমিল্লা”

Leave a Comment