বদেশ্বরী মহাপীঠ মন্দির – পঞ্চগড়

হিন্দু ধর্মের ১৮টি পুরাণের স্কন্দ পুরাণ অনুসারে, রাজা দক্ষিণ একটি যজ্ঞ অনুষ্ঠান করেছিলেন। ভোলানাথ ছিলেন শিব রাজা দশরথের জামাতা। রাজা দশরথ শিবকে তার জামাই হিসেবে মেনে নিতে পারেননি। কারণ মহাবীর শিব ছিলেন সর্বদা উদাসীন ও নেশাগ্রস্ত ও ধ্যানমগ্ন। যদিও যজ্ঞ অনুষ্ঠানে মুনিরিণী এবং দেবতাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল, রাজা দশরথের জামাতা এবং দেবী দুর্গার (পার্বতী/মহামায়া) স্বামী ভোলানাথ শিবকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। শিবের সহধর্মিণী এই কথা জানতে পেরেই ক্রোধে আত্মাহুতি দেন। শিব তার স্ত্রীর যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে উন্মাদ হয়ে ওঠেন এবং তার স্ত্রীর মৃতদেহ কাঁধে নিয়ে সারা বিশ্বে প্রলয় সৃষ্টি করে পাগলের মতো ঘুরে বেড়ান। সেই মুহূর্তে স্বর্গের রাজা বিষ্ণুদেব তা সহ্য করতে না পেরে স্বর্গ থেকে একটি দুদর্শন চক্র নিক্ষেপ করেন। চক্র স্পর্শ করার সময়, মৃতদেহ ৫১টি ভাগে বিভক্ত হয়। ২টি খন্ড বাংলাদেশে পঠিত হয়।

একটি চাতরাগামের সীতাকুণ্ডে এবং অন্যটি পঞ্চগড় জেলার বাদেশ্বরীতে। মহামায়ার খণ্ডিত অংশ যেখানে পড়েছিল তাকে পীঠ বলে। তার মধ্যে বদেশ্বরী মহাপীঠ মন্দির অন্যতম। উক্ত মন্দিরের নামানুসারে বোদা উপজেলার নামকরণ করা হয়েছে।পাঁচশত বছরের পুরনো এই মন্দিরের নামানুসারে বোদা উপজেলার নামকরণ হয়েছে বলে ঐতিহাসিকদের ধারণা। কারো কারো মতে এই এলাকা এক সময় কাদায় ভরা ছিল। ‘মাড’-এর প্রতিশব্দ ‘বোদ’ এবং এ থেকেই বোদা নামের উৎপত্তি।

ইতিহাস আমাদের বলে যে বোদা অঞ্চলটি বৌদ্ধ ও হিন্দু ব্রাহ্মণ অধ্যুষিত একটি জনপদ ছিল। খ্রিস্টীয় ২য়-৩য় শতাব্দীতে পঞ্চগড়সহ উত্তরবঙ্গের সমগ্র এলাকা মৌর্য সাম্রাজ্যের অংশ ছিল। বগুড়ার মহাস্থান নির্মাণের সময়কার শিলালিপি ও ইতিহাস থেকে জানা যায় যে, ইখতিয়ারউদ্দিন মুহম্মদ বখতিয়ার খিলজি অহমিয়া, যিনি তিব্বত অভিযানে ব্যর্থ হয়েছিলেন, বদেশ্বরী থেকে খরস্রোতা প্রবাহিত করতোয়া নদী পার হওয়ার সময় তুর্কি অশ্বারোহী বাহিনীর সাথে ডুবে গিয়েছিলেন। তুর্কি অশ্বারোহী বাহিনীর অনেক ঘোড়ার সাথে ডুবে গেছে যারা সাঁতারে অভ্যস্ত ছিল না।

বড়শশী ইউনিয়নের করতোয়া নদীর ওই ঘাটটি এখন ঘোড়ামারা ঘাট বা ঘোড়াঘাট নামে পরিচিত কারণ নদী পার হওয়ার সময় সৈন্যরা ঘোড়াসহ মারা যায়। বাকি সৈন্যদের নিয়ে অহম দস্যুদের ভয়ে খিলজি করতোয়া তীরের জঙ্গলে একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত মন্দিরে আশ্রয় নেন। পরে তিনি আবিষ্কার করেন যে আশ্রয়স্থলটি একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত দুর্গ। এটি বাদেশ্বরী মন্দির। পাল রাজারা মন্দিরের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বাদেশ্বরীতে একটি দুর্গ নির্মাণ করেছিলেন। পরবর্তীতে এই মন্দিরটি বহুবার সংস্কার করা হয়েছে।

স্থান:

বাদেশ্বরী মন্দিরটি পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নের বদেশ্বরী মৌজায় অবস্থিত।

Leave a Comment