ফ্রেন্ডশিপ সেন্টার- গাইবান্ধা

গাইবান্ধা শহর থেকে তিন কিলোমিটার দূরে গাইবান্ধা-বালাসী সড়কের পাশে রয়েছে বিশ্ব বিখ্যাত ফ্রেন্ডশিপ সেন্টার । ভবনটির ছাদ ও ভূপৃষ্ঠ একই স্তরে থাকায় দূর থেকে ভবনটি দেখা যায় না। ছাদে ঘাসের আচ্ছাদন ছাদ এবং মাটির মধ্যে একটি নিবিড় সম্পর্ক তৈরি করেছে। স্থাপত্যশৈলীর ধারণাটি প্রাচীন বৌদ্ধ বিহার মহাস্থানগড় থেকে নেওয়া হয়েছে। এই ভূগর্ভস্থ ভবনটি উপর থেকে একটি প্রাচীন বৌদ্ধ বিহারের অনুরূপ।

২০১২ সালের ১৮ নভেম্বর গাইবান্ধা-বালাসী সড়ক সংলগ্ন ফুলছড়ি উপজেলার মদনেরপাড়া গ্রামে প্রায় ৮ বিঘা জমির মাটির নিচে নির্মিত হয় ফ্রেন্ডশিপ কেন্দ্র। ৩২০০০ বর্গ মিটার ফ্রেন্ডশিপ সেন্টারে ২টি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ২৪টি আবাসনের জন্য কক্ষ, উন্নত খাবার ব্যবস্থার এবং ইনডোর স্পোর্টস, বই পড়ার জন্য লাইব্রেরি রয়েছে। ইন্টারনেট সুবিধা, একটি উচ্চমানের অডিও সিস্টেম, একটি মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর এবং একটি ব্যক্তিগত পাওয়ার সিস্টেম রয়েছে। এখানে জমিতে বিষমুক্ত সবজির চাষ হয়।

এছাড়াও রয়েছে ঔষধি গাছের বাগান। আমাদের গ্রামীণ সংস্কৃতিতে, প্রায় প্রত্যেকের বাড়িতে যেমন একটি উঠান থাকে ঠিক তেমনি ফ্রেন্ডশিপ সেন্টারেও একটি উঠান আছে। এর তদারকির জন্য কেন্দ্রে মোট ১৯ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী কাজ করেন।

প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হিসেবে প্রশিক্ষণার্থীদের জন্য একটি শান্ত ও শান্ত পরিবেশ তৈরি করা হয়েছে এবং পর্যাপ্ত আলো ও বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ভবনের ছাদ সবুজ ঘাসে আচ্ছাদিত এবং কক্ষগুলো ভূগর্ভস্থ হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই তুলনামূলকভাবে শীতল। স্কাই লাইটগুলি আশেপাশের কক্ষ ব্যতীত অন্য কক্ষগুলিতে প্রাকৃতিক আলোর উৎস। বায়ুচলাচল ব্যবস্থাও প্রাকৃতিক।

প্রতিটি ব্লক একই উচ্চতায়,  লাইট কোর্ট ও উন্মুক্ত চাতাল আলো-ছায়ার দারুণএকটি সুন্দর সমন্বয় তৈরি করে। ভবনটিতে ৫টি পানির পুল রয়েছে। বিল্ডিং জুড়ে অভিন্ন ইট ও সিমেন্ট গাঁথনি ব্যবহার করা হয়নি। ছাদে যাতে পানি না জমে সেজন্য ছাদের সর্বত্র চমৎকার ড্রেনেজ ব্যবস্থা। কিছু জায়গায় ড্রেনগুলি সাবধানে দৃষ্টিগোচর হয়।

মিশন:

ফ্রেন্ডশিপ ২০০২ সালে প্রান্তিক এবং সুবিধাবঞ্চিত সম্প্রদায়কে মর্যাদা এবং আশা নিয়ে বাঁচতে ক্ষমতায়নের জন্য যাত্রা শুরু করে। ফ্রেন্ডশিপ উত্তরবঙ্গের চর এলাকা এবং দক্ষিণের ঘূর্ণিঝড় কবলিত এলাকার স্বাস্থ্য ও শিক্ষাসহ অসহায় মানুষের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করে। ফ্রেন্ডশিপ কেন্দ্রে সুবিধাবঞ্চিতদের শিক্ষিত করে স্বাবলম্বী করা হয়। নিজেদের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান তাদের মিটিং-এর জন্য বন্ধুত্ব কেন্দ্র ভাড়া দেয়।

দয়া করে মনে রাখবেন যে ফ্রেন্ডশিপ কেন্দ্র জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত নয়। অভ্যন্তর পূর্ব অনুমতি সাপেক্ষে দেখা যাবে.

কিভাবে যাব:

গাইবান্ধা জেলা শহরের বাস স্টেশন থেকে ব্যাটারি চালিত টমটম বা সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে গাইবান্ধা-বালাসীঘাট সড়কে ৫ কিলোমিটার গেলেই পাবেন ফ্রেন্ডশিপ কেন্দ্র।

Leave a Comment