পরিকুন্ড জলপ্রপাত – মৌলভীবাজার

পরিকুন্ড জলপ্রপাত নামটি অনেকের কাছে অপরিচিত মনে হতে পারে। পরিষ্কার করে বলতে গেলে, মৌলভীবাজারের মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের নাম আমরা সবাই শুনেছি এবং অনেকেই এই জায়গাটি ঘুরে দেখেছি।

কিন্তু অজ্ঞতার কারণে আমরা অনেকেই মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের পাশের জঙ্গলে লুকিয়ে থাকা সুন্দর ঝর্ণার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য থেকে বঞ্চিত হয়েছি। মাত্র ১০ থেকে ১২ মিনিটের হাঁটা দূরত্বে পরিকুন্ড জলপ্রপাত মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের খুব কাছে।

৫০ মিটার উঁচু খাড়া পাহাড় থেকে এই ঝর্ণার পানি শব্দে নিচে নেমে গেছে। জলের কণাগুলি পাথরের সাথে সংঘর্ষে একটি নরম কুয়াশা তৈরি করে। ঝর্ণাটি অসংখ্য উদ্ভিদ প্রজাতি দ্বারা বেষ্টিত।

এ যেন সবুজের এক মহা সমারোহ। এছাড়াও পাখির কিচিরমিচির বনের নীরবতাকে জাগিয়ে রাখে সারাক্ষণ। জলপ্রপাতের সুন্দর দৃশ্য দেখার জন্য প্রাকৃতিক আসন হিসাবে প্রচুর পাথর রয়েছে। অনেকে নিজেকে সামলাতে না পেরে ঝরনার পানিতে শরীর, মন ও আত্মা ভিজিয়ে দিতে নেমে পড়েন।

গভীর জঙ্গল এবং প্রচারের অভাবের কারণে, এই জায়গাটি স্থানীয় মানুষ এবং পর্যটকদের কাছ থেকে খুব বেশি যানবাহন পায় না।

মাধবকুন্ড থেকে পরীকুন্ডে যাওয়ার একমাত্র পথ পায়ে হেঁটে। ট্রেইলটি পাথুরে এবং এর সাথে জলের স্রোত বয়ে গেছে। পথে কোন ভয় নেই, তবে হাঁটার সময় একটু বাড়তি সতর্কতার পরামর্শ দেওয়া হয়। কারণ পানিতে ভিজে পায়ের নিচের পাথর পিচ্ছিল হয়ে যায়।

পরিকুন্ড জলপ্রপাত কিভাবে যাবেন:

ঢাকা থেকে বাস, ট্রেন ও প্লেনে মৌলভীবাজার যাওয়ার পর পরিকুন্ড জলপ্রপাত দেখতে যেতে হবে।

কল্যাণপুর, সায়েদাবাদ, মৌলভীবাজার, কমলাপুর জেলাসহ দেশের সব স্থান থেকে বাস ছাড়ে, কুলাউড়া যেতে মৌলভীবাজারের বাসে যেতে হবে।

ঢাকা-মৌলভীবাজার রুটে চলাচলকারী বাসগুলো হল হানিফ এন্টারপ্রাইজ , শ্যামলী পরিবহন, টিআর ট্রাভেলস ।

ট্রেনে যেতে চাইলে ঢাকার কমলাপুর থেকে সিলেট রুটের ট্রেনে কুলাউড়া স্টেশনে যেতে হবে।

ঢাকা থেকে সিলেট রুটে চলাচলকারী ট্রেনগুলো হলো- জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস (সপ্তাহে ৭ দিন দুপুর ২টায়), পারাবত এক্সপ্রেস (প্রতিদিন মঙ্গলবার সকাল ৬:৪০ মিনিটে) ঢাকা থেকে ছেড়ে যায়।

আপনি যদি বিমানে যেতে চান তবে আপনাকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের ফ্লাইট নং 4H-0511 সিলেটে যেতে হবে এবং তারপরে মৌলভীবাজারে পাবলিক বাসে যেতে হবে।

সপ্তাহের মঙ্গল, বৃহস্পতিবার, শনি, রবিবার এই চার দিন ঢাকা-সিলেট রুটে আকাশপথে যাতায়াত করা যাবে।

কুলাউড়া থেকে আপনি সিএনজি অটোরিকশায় সরাসরি মাধবকুন্ড যেতে পারেন । পাবলিক বাসেও যেতে পারেন।

বাসে যেতে হলে আপনাকে কাঁঠালতলী বাজারে নামতে হবে এবং সেখান থেকে সিএনজি অটোরিকশায় করে মাধবকুন্ড যেতে হবে । মাধবকুন্ডে পৌঁছে নির্ধারিত প্রবেশ টিকিট কেটে মাধবকুন্ড পর্যটন এলাকায় প্রবেশ করতে হয়। পর্যটন কেন্দ্রে প্রবেশ করে ঝর্ণার রাস্তা ধরে কিছুক্ষণ হাঁটার পর প্রথমে হাতের বা পাশে একটি শিব মন্দির দেখতে পাবেন।

শিব মন্দিরের উল্টোদিকে রাস্তার পাশে একটি সিঁড়ি রয়েছে। সিঁড়ি দিয়ে নামলেই দেখা যায় মাধবকুন্ড কূপ থেকে জলের স্রোত বয়ে চলেছে। সেই প্যাটার্নের সোজা পাথরের পথ ধরে ১০ থেকে ১২ মিনিট হাঁটার পর, আপনি বনের মধ্যে স্বপ্নময় পরিকুন্ড জলপ্রপাত দেখতে পাবেন।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি সিলেট বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment