পরশুরামের প্রাসাদ-বগুড়া

ঐতিহাসিক মহাস্থানগড়ের সীমানা প্রাচীরের মধ্যে আবিষ্কৃত প্রাচীন সভ্যতার মধ্যে পরশুরাম প্রাসাদ অন্যতম। এটি স্থানীয়ভাবে তথাকথিত হিন্দু নৃপতি পশুরামের প্রাসাদ নামে পরিচিত। পরশুরাম ছিলেন ভগবান বিষ্ণুর ষষ্ঠ অবতার। তিনি ত্রেতাযুগে উপস্থিত ছিলেন। পরশুরামের বাবা জমদগ্নি ব্রাহ্মণ হলেও মা রেণুকা ছিলেন ক্ষত্রিয়। কঠোর তপস্যার মাধ্যমে তিনি শিবের কাছ থেকে ভিক্ষা লাভ করেন এবং যুদ্ধবিদ্যা শিখেন।

৭৫০ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১১২৪ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত পাল রাজারা এখানে রাজত্ব করেছেন। জনপ্রিয় পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, রাজা নলের ছোট ভাই নীল ১০৮২-১১২৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এই রাজ্যের রাজা ছিলেন। সেই সময় দক্ষিণ ভারতের শ্রীক্ষেত্র থেকে এক অভিশপ্ত ব্রাহ্মণ মহাস্থানগড়ে আসেন। এই মাতৃতান্ত্রিক ব্রাহ্মণ প্রথমে পুন্ড্রনগরের প্রধান পুরোহিত হিসাবে নিযুক্ত হন। পরে বিরোধ মেটাতে নালা ও তার ভাই (নীল) তাদের হেফাজত নেন। পরে তিনি নলা ও নীলকে প্রতারণা করে ব্রাহ্মণ পুন্ড্রনগরের রাজা হন। অভিশপ্ত ব্রাহ্মণের নাম ছিল রাম। আর এই রাম মহাস্থানগড়ে পরশুরাম নামে পরিচিত। শাহ সুলতান বলখীর মাজার থেকে প্রায় ২৫০ মিটার এবং মহাকালী কুন্ডের প্রায় ২০০ মিটার উত্তরে এই এলাকার শেষ হিন্দু রাজা পরশুরামের প্রাসাদ ছিল। এখানে খনন করা হয়েছে (১৯৬১) পাল, ইসলামিক এবং ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলের বেশ কিছু সাংস্কৃতিক নিদর্শন পাওয়া গেছে। খননের নিচের স্তরে পাল আমলের বেশ কিছু ইমারতের ধ্বংসাবশেষ, কিছু পোড়ামাটির খোদাই করা পাতলা ইট (ফলক) এবং স্থানের মাঝখানে কিছু ভবনের ধ্বংসাবশেষও পাওয়া গেছে। এগুলো ইসলামী শাসনের। খনন এলাকার শীর্ষ স্তরে একটি অষ্টাদশ- বা ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকের বাসস্থান পাওয়া গেছে। এটি পরশুরামের প্রাসাদ।

অবকাঠামো:

উপরের স্তরটি অপেক্ষাকৃত আধুনিক সময়ে নির্মিত একটি বড় আবাসিক এলাকার সম্পূর্ণ নকশা প্রকাশ করে। অভ্যন্তরীণ মহলে একটি ছোট উঠানের মুখোমুখি ৪টি পৃথক মহল বা অংশ পাওয়া গেছে। মোহসের প্রবেশপথ, সোপান, সীমানা প্রাচীর এবং পূর্ব ও পশ্চিমে দুটি প্রবেশপথ সহ বেশ কয়েকটি কক্ষ আবিষ্কৃত হয়েছে। মূল প্রবেশদ্বার হল পূর্ব দিকের প্রবেশপথ। এর দুপাশে দুটি প্রহরী রুম দেখা যায়। মুঘল ও ব্রিটিশ আমলে ভূ-পৃষ্ঠে ব্যবহৃত ইটের ছোট আকার, লাইম মর্টার ব্যবহার, লাইম প্লাস্টার ক্ল্যাডিং, স্থাপত্য শৈলী ইত্যাদির কারণে এই ভবনটি ১৮ শতকের শেষভাগে নির্মিত বলে অনুমান করা যায়।

Leave a Comment