নীলাদ্রি লেক – সুনামগঞ্জ

নীলাদ্রি লেক নীল রঙে যে সেজেছে “নীলাদ্রি”। যেন নীলের রাজ্যের আকাসে হারিয়ে যাওয়া। স্বর্গীয় সৌন্দর্যে ভরপুর এই জায়গাটি কাশ্মীরে নয়, আমাদের দেশে! আপনি বিস্মিত? ছবি দেখে কাশ্মীর নিয়ে ভুল করবেন না, সবাই নীলাদ্রি নামেই চেনে। সুনামগঞ্জ থেকে মনের শান্তি নিয়ে চলে আসুন এর অপরূপ সৌন্দর্যে নিজেকে ডুবিয়ে দিতে। টাকেরঘাট চুনাপাথর খনি প্রকল্পের কোয়ারি তার পরিচয় হারিয়েছে এবং এখন পর্যটকদের কাছে নীলাদ্রি হ্রদ নামে পরিচিত। নীলাদ্রি লেক ভারতের মেঘালয় সংলগ্ন উপজেলার উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের ঠাকুরঘাটে অবস্থিত। প্রতিদিন শত শত পর্যটক এই লেকের সৌন্দর্য উপভোগ করতে ভিড় জমায়।

সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওরে অনেকেই বেড়াতে যান। কিন্তু এর আশেপাশে অনেক সুন্দর সুন্দর জায়গা আছে যেগুলো যে কোনো পর্যটককে এক নিমিষেই অবাক করে দিতে পারে! এমনই একটি জায়গা হল লাইমস্টোন লেক, টেকেরঘাটের একটি পরিত্যক্ত চুনাপাথরের খনি। স্থানীয় লোকজন একে নীলাদ্রি লেক নামে চেনেন। তার নাম যেমন সুন্দর তেমনি তার আকৃতিও মোহনীয়। নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাস করতে পারবেন না যে জলের রং এত নীল আর প্রকৃতির মায়াবী রূপ। মাঝখানের পাহাড় এবং অপর পাশের পাহাড়ের নিচের অংশ বাংলাদেশের চূড়ান্ত সীমানা তৈরি করেছে। একটি তারের বেড়া রয়েছে যা বড় ঢিবির সীমানা। লেকটি একসময় চুনাপাথরের কারখানার জন্য কাঁচা চুনাপাথর সরবরাহের ডিপো ছিল যা এখন অদৃশ্য হয়ে গেছে।

কোথায় থাকবেন:

বড়ছড়া বাজারে বেশ কয়েকটি রেস্ট হাউজ ও গেস্ট হাউস রয়েছে। বারিক্কা টিলা পার হলেই দেখতে পাবেন বড়ছড়া বাজার। আপনি চাইলে টেকেরঘাট থেকে বড়ছড়া বাজার পর্যন্ত হেঁটে যেতে পারেন, মেঠো রাস্তা ধরে হাঁটতে ভালো লাগে। লেকের পাশে একটি বন্ধ চুনাপাথরের কারখানাও আছে যেখানে পাওয়া গেলে গেস্ট হাউসে থাকতে পারবেন।

কিভাবে নীলাদ্রিতে যাওয়া যায়:

রুট-১:

ঢাকা থেকে শ্যামলী/মামুন/এনা সহ আরো কিছু বাস সুনামগঞ্জ যায়, যেকোন একটি বাসে উঠুন। সুনামগঞ্জ থেকে নতুন ব্রিজ পার হয়ে মোটরবাইকে যেতে হবে। আপনি চাইলে সরাসরি টেকেরঘাটে মোটরবাইক বুক করতে পারেন। এক্ষেত্রে ভাড়া ৩০০-৫০০ টাকা হতে পারে, আর মাঝখানে যাদুকাটা নদী পার হতে জনপ্রতি ভাড়া ৫ টাকা, মোটর সাইকেলের ভাড়া ২০ টাকা।

তাছাড়া সুনামগঞ্জ থেকে লাউডার যেতে ২০০ টাকায় মোটরবাইকে যেতে পারেন। তারপর ১২০ টাকায় ইয়াদুকাটা নদী পার হয়ে বারিক্কা টিলা থেকে টেকেরঘাট যেতে পারবেন। এখানে উল্লিখিত মোটরবাইক ভাড়া সম্পূর্ণ বাইক ভাড়া, তাই এটি একটি বাইকে ২ জন থাকতে পারে। কিন্তু আপনি যদি আগে থেকে মোটরবাইক ভাড়া নিয়ে আলোচনা করেন তবে বোকা হবেন না, যদি আপনি একটি অপরিচিত মুখ দেখতে পান তবে তারা দাম কিছুটা বাড়িয়ে দেবে।

রুট-২:

ঢাকা থেকে নেত্রকোনা মোহনগঞ্জ আন্তঃনগর ট্রেনের নাম হাওর এক্সপ্রেস। ঢাকা থেকে ছাড়ার সময় রাত ১১টা, ভাড়া ২০০ টাকার মধ্যে, সকালে মোহনগঞ্জ পৌঁছান। সেখান থেকে মধ্যনগর, পিচ ঢালা সড়কে ১ ঘণ্টার পথ। সেখান থেকে বর্ষাকালে নৌকা, ট্রলার বা স্পিডবোটে করে সহজেই গন্তব্যে পৌঁছানো যায়। আর নেত্রকোনা থেকে নৌকা/ট্রলারে সরাসরি যোগে যাওয়া যায়। শীতকালে নেত্রকোনা থেকে সহজেই মোটরবাইকে যেতে পারেন।

এটি সহজেই সর্বনিম্ন খরচে, আরামে, অল্প সময়ে অর্জন করা যায়।

কেউ যদি নিজের গাড়ি মধ্যনগরে (পিপরা কান্দা ঘাট) নিয়ে যেতে চান, তিনি নিজের গাড়ি, মাইক্রোবাস বা গাড়ি বা জীপ নিয়ে যেতে পারেন। রাস্তাটা খুব সুন্দর।

ঢাকা থেকে নেত্রকোনা হয়ে বারহাট্টা বা মোহনগঞ্জ থেকে টেকেরঘাট পর্যন্ত ছোট পথ।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি খুলনা বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment