নারায়ণতলা – সুনামগঞ্জ

নারায়ণতলা সুনামগঞ্জ উপজেলার অন্যতম আকর্ষণ স্থান। শহর থেকে ১২ কিমি. এটি সীমান্তের কাছে মেঘালয় রাজ্যের খাসিয়া পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত। আপনি যখন নারায়ণতলায় যান, প্রথম যে জিনিসটি আপনাকে স্বাগত জানায় তা হল বিশাল সবুজ পাহাড়। কিন্তু নিজের চোখে পাহাড় দেখার সুযোগ থাকলেও সেগুলোতে চড়ার সুযোগ পাবেন না। কারণ – ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সীমান্তের ওপারে বড় পাহাড়ের অবস্থান। অবশ্যই, চিন্তার কিছু নেই। সীমান্তে দাঁড়িয়ে অন্য দেশ দেখার মজাও কম নয়। এখানেও, সীমানা কলামের উপরে পা রাখার আনন্দ একটি প্লাস। নারায়ণতলা শুধু সৌন্দর্যেই অতুলনীয় নয়, ইতিহাসেও এই স্থানটির গুরুত্ব অপরিসীম। ৪৮ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা নারায়ণতলার ডলুরায় গাছরাজীর শীতল ছায়ায় চিরনিদ্রায় শায়িত।

মুক্তিযুদ্ধের সময় বালাট সাব-সেক্টরের অধীনস্থ যোদ্ধাদের গণকবরগুলো প্রতিদিন অসংখ্য দর্শনার্থী ডলুরা শহীদ মাজারে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন। নারায়ণতলার উপকণ্ঠে গ্রাম, মুগাইর, গারোদের অধ্যুষিত। এখানে এসে গারো সমাজ ও সংস্কৃতির সাথে মিশে যাবে।এছাড়াও, নারায়ণতলায় খ্রিস্টান মিশনারিদের দ্বারা পরিচালিত বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। মিশনটি চার্চ অফ সেন্ট থমাস নামে পরিচিত। এছাড়া ডলুরার পাশ দিয়ে বয়ে চলা বর্তমান নদীটিও পর্যটকদের জন্য খুবই আকর্ষণীয়। সব মিলিয়ে নারায়ণতলার সৌন্দর্য অতুলনীয়। সুন্দর এই স্থানে যেতে হলে প্রথমে সুরমা নদী পার হয়ে নৌকায় করে হালুয়া ঘাটে যেতে হবে, এখান থেকে রিকশায় করে নারায়ণতলায় যেতে হবে।

কোথায় থাকবেন?

হোটেল প্যালেস: সুনামগঞ্জে একটি মাত্র শালীন হোটেল আছে। এখানে আরেকটি এসি  রুমও আছে। ফোন নম্বর: 0871-55341 (ল্যান্ডলাইন), 0171-9048282 (জনাব মনোজ কান্তি, ম্যানেজার)। সানক্রেড (এনজিও): ঠিকানা: হাসান নগর, সুনামগঞ্জ। ফোন: মি. রেমা: 01718523204

বিশ্ব মাছ: ঠিকানা: ষোলঘর, আলীপাড়া, সুনামগঞ্জ। রুম সম্পর্কে আপনি সরাসরি হালিম ভাইয়ের সাথে কথা বলতে পারেন: 01918-273485। এবং আপনি ওয়ার্ল্ড ফিশ, সুনামগঞ্জের সাথে 0871 56201 নম্বরে কথা বলতে পারেন।

কাছাকাছি আকর্ষণীয় স্থান:

হাছনরাজা মিউজিয়াম,  বারেকটিলা ও যাদুকাটা,লাউড়ের গড়,টাঙ্গুয়ার হাওর

কিভাবে যাবেন:

ঢাকা থেকে নন এসি বাসে সরাসরি সুনামগঞ্জ যাওয়া যায়  অথবা আরও ভাল, আপনি যদি ঢাকা থেকে গ্রীন লাইন বা সোহাগের। প্রায় 5 ঘন্টার মধ্যে সিলেট হুমায়ুন রশীদ চ্যাটারে চলে যায়। সেখান থেকে ২০ টাকায় রিকশা ভাড়া করে কীন ব্রিজ পার হয়ে যান। তারপর কুমারগাঁও বাস স্টপে সিএনজি শেয়ার/রিজার্ভ করুন। সেখান থেকে একটি ‘নন-স্টপ’ বাসের টিকিট কিনুন এবং ২ ঘন্টার মধ্যে সুনামগঞ্জের বাসে উঠুন।

সুনামগঞ্জ ট্রাফিক পয়েন্ট থেকে টমটম বুক করুন ৫০ টাকায় পনের মিনিটে হলদিয়া ঘাটে পৌঁছান। সেখান থেকে ট্রলারের ওপারে বাজার এবং মোটরসাইকেলে যেতে হবে নারায়ণতলা শহীদ মিনারে। মোটরসাইকেলে চালকসহ তিনজন। বিশ থেকে ত্রিশ মিনিট সময় লাগে।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

আপনি সিলেট বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment