নয় গম্বুজ মসজিদ – রংপুর

লালদীঘি নয় গম্বুজ মসজিদ  রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলায় বাংলাদেশের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনগুলির মধ্যে একটি। মসজিদটি বদরগঞ্জ উপজেলার লালদীঘি নামক স্থানে অবস্থিত বলে স্থানটির নামানুসারে এর নামকরণ করা হয়েছে।

একটি বিরল মুঘল মসজিদ। এটি লালদীঘিতে অবস্থিত যা রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলার একটি প্রধান ব্যবসা কেন্দ্র। জায়গাটি খোলাহাটি রেলওয়ে স্টেশন থেকে প্রায় ৬ কিলোমিটার উত্তরে। ভবনটি একসময় গভীর জঙ্গলে ঢাকা ছিল। এটি ব্রিটিশ আমলের শেষের দিকে বন পরিষ্কারের সময় আবিষ্কৃত হয়েছিল। এরপর থেকে এখানে নিয়মিত নামাজ অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। স্থানীয়দের দ্বারা কিছু সংস্কারের পরে এটি এখন ভাল অবস্থায় আছে।

 

লালদীঘি মসজিদ, রংপুর:

মসজিদটি একটি সংস্কারকৃত পূর্বমুখী প্রবেশপথ সহ একটি উঠানের মধ্যে প্রায় ১ মিটার উঁচু একটি বাঁধানো  পশ্চিম অর্ধেকের উপর অবস্থিত। মসজিদের ভিত্তির সিঁড়ির খোলা জায়গায় পৌঁছানোর জন্য পূর্ব দিকে একটি মাত্র সিঁড়ি রয়েছে। এই উঠানের উত্তর-পূর্ব কোণে একটি ধাপযুক্ত মঞ্চ। এটি সম্ভবত আযান দেওয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল। মসজিদের সামনে ঘাটসহ একটি বড় পুকুর। মূল মসজিদটি সম্পূর্ণরূপে ইটের তৈরি এবং চুন-সুরকি প্লাস্টারে আবৃত মসৃণ।

এটি বেশ কয়েকটি গম্বুজ বিশিষ্ট একটি বর্গাকার ভবন। বাইরে থেকে প্রতিটি বাহুর দৈর্ঘ্য ৯.৪৫ মিটার। পূর্ব দিকের দিকে তিনটি খিলানযুক্ত প্রবেশপথ রয়েছে। মাঝখানেরটা দুই পাশের থেকে বড়। উত্তর ও দক্ষিণ দেয়ালেও তিনটি অনুরূপ খিলানযুক্ত প্রবেশপথ রয়েছে। মাঝেরটি অন্য দুটির চেয়ে বড়। উত্তর ও দক্ষিণ দিকের দুটি ফটক পূর্ব দিকের কেন্দ্রীয় প্রবেশপথের উচ্চতা ও প্রস্থে সমান। উভয় পাশের অন্য দুটি খোলা জায়গা জানালা এবং ইটের তৈরী জালি  দিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তিনটি পূর্ব প্রবেশপথ বরাবর কিবলার দেয়ালে তিনটি অর্ধ-অষ্টভুজাকার মিহরাব রয়েছে। কেন্দ্রীয় মিহরাবটি অপেক্ষাকৃত বড়।

 

জমির নকশা, লালদীঘি মসজিদ:

সমস্ত মিহরাব এবং প্রবেশপথে বহু রঙের খিলান রয়েছে। মসজিদের পাঁচটি প্রবেশদ্বারই একটি অর্ধগম্বুজাকৃতির খিলান ছাদের নিচে। এই শৈলীটি উপমহাদেশের মুঘল স্থাপত্যের একটি সাধারণ বৈশিষ্ট্য। মসজিদের চার দেয়ালের মাঝখানে প্রাচীরের সামান্য বাইরে একটি প্রক্ষেপণ রয়েছে। এই অভিক্ষেপটি পশ্চিম দিকে কেন্দ্রীয় মিহরাবের চারপাশে এবং অন্য তিন দিকে কেন্দ্রীয় প্রবেশদ্বারগুলির চারপাশে নির্মিত। এই চারটি অভিক্ষেপের উভয় প্রান্তে রয়েছে সরু অলঙ্কৃত মিনার । এগুলি ছাদের অনুভূমিক প্যারাপেটের উপরে উঠে যায় এবং ছোট গম্বুজের উপরে কলসি নকশা। মসজিদের চার কোণের বাইরের দিকে একটি বৃত্তাকার পার্শ্ববুরুজ। এগুলিও প্যারাপেটের উপরে প্রসারিত হয়।

বুরুজের বুরুজে রয়েছে ক্ষুদ্রাকৃতির বাঁশিওয়ালা গম্বুজ যার শীর্ষে রয়েছে কলস নকশা। চারটি ইটের স্তম্ভের দুই সারি ব্যবহার করে মসজিদের অভ্যন্তরভাগ তিনটি ‘আইল’ এবং তিনটি ‘বে’-এ বিভক্ত। অর্থাৎ মসজিদের অভ্যন্তরভাগ নয়টি পৃথক বর্গাকার উপসাগরে বিভক্ত। তাদের প্রত্যেকের উপরে একটি গম্বুজ রয়েছে। গম্বুজগুলোর আকৃতি কিছুটা গোলাকার। চারটি অভ্যন্তরীণ স্তম্ভ এবং প্রতিটি দেয়ালে দুটি মোট আটটি সংলগ্ন স্তম্ভের উপর নির্মিত ছেদকারী খিলানের ভার বহন করছে। গম্বুজ নির্মাণে বাংলার ঐতিহ্যবাহী পেন্ডেন্টিভ ব্যবহার করা হয়েছে।

মৌচাকের নকশার একটি সহজ অথচ সুন্দর রূপ এখানে ধারাবাহিক কৌণিক এবং ইটের সাহায্যে উপস্থাপন করা হয়েছে। সমস্ত গম্বুজ সরাসরি অষ্টভুজাকার পিপার উপর স্থাপন করা হয়। এবং এই পদ্ম এবং কলস নকশাশোভিত দিয়ে সজ্জিত। অভ্যন্তরে পৃথক ইটের স্তম্ভগুলি বিশাল এবং বহু-সশস্ত্র। তারা কলস নকশা উপর ভিত্তি করে এবং নিচ থেকে ক্রমহ্রাসমান।

পুরো ভবনের ভিতরের ও বাইরের দেয়াল চুনের প্লাস্টার দিয়ে মসৃণভাবে প্লাস্টার করা হয়েছে। কিবলা দেয়াল ব্যতীত অন্য তিনটি দেয়ালের বাইরের অংশ এই প্লাস্টারের তৈরি ছোট লম্বাটে নকশা দিয়ে সজ্জিত। ইমারতের পুরো বিস্তার জুড়ে রয়েছে ডোরাকাটা নিদর্শন দিয়ে সজ্জিত অনুভূমিক কার্নিসের একটি ব্যান্ড দিয়ে আচ্ছাদিত। আর তার উপরে সুন্দর পদ্মের পাপড়ির নকশার সারি। গম্বুজের বাইরের অংশ এবং পাশের পার্শ্ববুরুজগুলির উপর ছাউনির ভিত্তিও একই রকম পদ্মের পাপড়ির নকশায় সজ্জিত।

সব মিহরাবই একসময় সমৃদ্ধভাবে সজ্জিত ছিল। আজ, তবে, তারা অনেকাংশে হারিয়ে গেছে। মিহরাবের কুলুঙ্গির উপরে অর্ধগম্বুজ  খিলানযুক্ত ছাদটিতে এখন একটি পূর্ণ পদ্মের অর্ধেক প্যাটার্ন রয়েছে এবং মিহরাবের উপরের ব্যান্ডটিতে একটি সারিবদ্ধ পদ্মের পাপড়ির নকশা রয়েছে। গম্বুজের গোড়ায় নিশ্চয়ই একসময় গভীর খিলান নকশা ছিল, যার চিহ্ন এখনও কেন্দ্রীয় গম্বুজে দেখা যায়। এর শীর্ষে একটি বড় বৃত্তাকার নকশা এবং এই বৃত্তের মাঝখানে একটি ইন্টারলকিং পিলাস্টার নকশা খোদাই করা আছে।

মসজিদের পূর্ব দিকের অংশে একসময় কেন্দ্রীয় প্রবেশপথে একটি শিলালিপি ছিল। এই মসজিদটি এখন হারিয়ে যাওয়ায় এর নির্মাণ তারিখ সঠিকভাবে জানা যায়নি। লালদিঘীকে ঘিরে জনশ্রুতি অনুযায়ী একজন দিলওয়ার খান এই মসজিদের নির্মাতা। এই দিলওয়ার খানের পরিচয় এখনো জানা যায়নি। যাইহোক, এই মসজিদের অনেক স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য কিশোরগঞ্জের গড়াই মসজিদ (আনুমানিক ১৩৮০), বাগেরহাটের চকশ্রী মসজিদ (আনুমানিক সপ্তদশ শতাব্দীর শেষের দিকে), বগুড়ার ফররুখ সিয়ার মসজিদ (১৭১৮), মুঘল আমলে নির্মিত। অতএব, এর স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য বিচার করে, এই মসজিদের নির্মাণকাল নির্ধারণ করা যেতে পারে সপ্তদশ শতাব্দীর শেষের দিকে বা অষ্টাদশ শতাব্দীর প্রথম দিকে।

নয় গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ পরিকল্পনা নবম শতাব্দীর প্রথম দিক থেকে এশিয়া, ইউরোপ এবং আফ্রিকার বেশ কয়েকটি মুসলিম দেশে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং তখন থেকেই এই পরিকল্পনার সাথে মসজিদগুলি নির্মিত হয়েছে। এখনও অবধি পরিচিত ভবনগুলির মধ্যে একটি হল মসজিদ-ই তারিখ (৮০০-৫০), আফগানিস্তানের বলখের প্রাচীনতম নয় গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ। এরকম আরও কিছু উদাহরণ হল সুসার বু ফাতাতা মসজিদ (আনুমানিক ৮৪০), কায়রোর শরীফ তাবাতাবা মসজিদ (আনুমানিক ৯৫০), টলেডোর বিবি মারদুম মসজিদ (আনুমানিক ১১ শতকের শেষের দিকে), এসকি জামি মসজিদ (১৪০৪-১৪) ইত্যাদি

বাংলার নয় গম্বুজ মসজিদের মধ্যে বাগেরহাটের নয় গম্বুজ মসজিদ, বরিশালের গৌরনদীর কসবা মসজিদ এবং খুলনার আমদীর মসজিদকুর মসজিদ উল্লেখযোগ্য। এগুলো সবই প্রাক-মুঘল আমলে নির্মিত। লালদিঘি মসজিদটি মোগল ভারতে নয় গম্বুজ বিশিষ্ট বর্গাকার মসজিদের একমাত্র পরিচিত উদাহরণ। এই প্রথাটি বাংলার সালতানাতে বেশ জনপ্রিয় ছিল এবং বাংলার সুলতানদের পতনের অনেক পরে আবার অনুসরণ করা হয়েছিল।

Leave a Comment