তাড়াশ রাজবাড়ী – পাবনা

পাবনা শহরের প্রাণকেন্দ্রে বনমালী রায় বাহাদুরের তাড়াশ ভবনটি এখনো প্রায় অক্ষত। তাড়াশের এই জমিদার পাবনার জমিদারদের মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত ও প্রাচীনতম হিসেবে পরিচিত। সেই সময় থেকে বাড়ির মালিক পরিবারকে বলা হয় জমিদার। বগুড়া জেলার চান্দাইকোনার কাছে ‘কোদলা’ গ্রামের এক বাড়ীর কায়স্থ জমিদার ছিলেন। এই জমিদার হলেন তাড়াশের রায় বংশের পূর্বপুরুষ বাসুদেব। তাড়াশের এই পরিবারটি ছিল পাবনা জেলার সবচেয়ে বড় জমিদার। নবাব মুর্শিদকুলি খানের রাজস্ব বিভাগে চাকরি করার পর বাসুদেব রাজবাড়ি প্রতিষ্ঠা করেন। নবাব মুর্শিদকুলী খান বাসুদেবকে ‘রায় চৌধুরী’ উপাধিতে ভূষিত করেন। প্রায় ২০০ টি মৌজা নিয়ে তার সম্পত্তি ছিল।

এই রায় বংশের বনমালী রায় এবং বনওয়ারিলাল রায়ের নির্মাণ  বনমালী ইনস্টিটিউট যা এক ঐতিহ্য বহনকরে। জানা যায়, ১৯৪২ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় যুদ্ধের ভয়ে এই জমিদার পরিবার পাবনা শহরের ঐতিহাসিক তাড়াশ ভবনে আশ্রয় নেয়। পাবনা অঞ্চলের সর্বশ্রেষ্ঠ জমিদারকর্তির নির্মিত তাদের অমরত্ব আজও পাবনা শহরের তাড়াশ ভবনে তাদের স্মৃতি বহন করে। মূলত বনোয়ারীলাল ফরিদপুর থানার ডেমরায় বসতি স্থাপন করেন এবং পরে এই স্থানটিকে বনওয়ারীনগর বলা হয়। তাদের নির্মিত নগর ভবনটি তাড়াশ রাজবাড়ী নামেও পরিচিত।

অবকাঠামো:

পাবনা প্রসাদোপম ভবনের সম্মুখভাগ দুতলা বিশিষ্ট এবং প্রাসাদের দোতলা প্রকোষ্ঠটি চারটি প্রতিসাম্য বৃত্তাকার স্তম্ভ দিয়ে নির্মিত। প্রাসাদের সামনের খোলা প্রাঙ্গণের শেষে প্রবেশদ্বারটির প্রতিটি পাশে দুটি করে চারটি স্তম্ভ এবং কেন্দ্রে একটি বিশাল অর্ধবৃত্তাকার খিলান রয়েছে। অত্যাশ্চর্য প্রবেশদ্বারটি সহজেই সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনামলে ইউরোপীয় রেনেসাঁ শৈলীর প্রভাবে নির্মিত তাড়াশ জমিদারবাড়ি তাড়াশের জমিদার রায় বাহাদুর বনমালী রায়ের সম্পদের স্মৃতি নিয়ে বসবাস করে। তাড়াশ জমিদারদের দ্বারা পাবনায় নির্মিত প্রাসাদের (রাজবাড়ী) সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হল প্রবেশদ্বার। ভবনটি আয়তাকৃতির এবং এর আয়তন  প্রস্থ ১৮.২৮ মিটার(৬০ ফুট)  এবং  দৈর্ঘ্যে ৩০.৪০ মিটার (১০০ ফুট)। চারটি কোরিনথিয়ান কলামের শীর্ষে থাকা আকর্ষনীয়  দ্বিতলা গাড়িবারান্দা সহজেই পথচারীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। তাড়াশ জমিদার ভবনের দুপাশে দুটি প্রসারিত অঙ্গ রয়েছে এবং অর্ধবৃত্তাকার খিলানগুলি প্রতিসাম্যভাবে ঢোকানো হয়েছে। বর্তমানে সরকারী অফিস হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। তাড়াশ রাজবাড়ী অন্যান্য সমসাময়িক জমিদারদের তুলনায় ভালো অবস্থায় রয়েছে এবং সম্প্রতি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর কর্তৃক একটি সংরক্ষিত ভবন হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছে। এই সম্পদের সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট বিভাগের মাধ্যমে পর্যটন সুবিধা চালু হলে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান হিসেবে বিবেচিত হবে। তাছাড়া এটি সংশ্লিষ্ট খাতে আয়ের পথ সুগম করবে।

Leave a Comment