জামাল রহঃ পবিত্র মাজার – গাইবান্ধা

ভারতীয় উপমহাদেশে ইসলাম প্রচারের জন্য ৩৬০জন আউলিয়ারা; হযরত শাহ জালাল (রহ.) তাদের একজন। হযরত শাহ পরাণ (রহ.),নিজাম উদ্দিন (রহ.), হযরত শাহ কামাল (রহ.), হযরত শাহ জামাল (রহ.),সুলতান শাহ (রহ.), সৈয়দ জাহান (রহ.),সৈয়দ কুতুব উদ্দিন (রহ.),এর আগমনের সময়। হযরত শাহ কামাল ঐতিহাসিক প্রমাণ রয়েছে যে এটি মাওলানা খন্দকার বশির উদ্দিনের অগ্রদূত ছিলেন, যিনি হযরত শাহ জালাল (রহ.) গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন- হযরত শাহ কামাল (রহ.), হযরত শাহ জামাল (রহ.) এর মতো অন্যান্য আউলিয়াদের জীবনীতে উল্লেখ করেছেন। , হযরত শাহ জালাল (রহ.), হযরত শাহ পরান (রহ.) সহ ৩৬০ আউলিয়ার জীবনী একই ভিত্তিতে সংকলিত হয়েছে। হযরত শাহ কামাল (রহ.) ও হযরত শাহ জামাল (রহ.) তাঁর ভাই। ভাইয়েরা হযরত শাহ জালাল (রহ.)-এর শিষ্য বা সহচর ছিলেন। ইসলাম প্রচারকদের মধ্যে হযরত শাহ কামাল

(রহ.) ও শাহ জামাল (রহ.) এর অবদান একটি ঐতিহাসিক দলিল। হযরত জামাল পবিত্র মাজারের নামে জামালপুর জেলার নামকরণ। একই জেলার মেলান্দহ উপজেলার দুরমুট গ্রামে হযরত শাহ কামাল (রহ.)-এর অন্য মাজারটি অবস্থিত। তৎকালীন ক্যান্টনমেন্ট ম্যাজিস্ট্রেট মিঃ ডোনোর লেখা অনুসারে, তারা সুলতানি আমলে ৯১০ থেকে ১৫০৩ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে বাংলায় এসেছিলেন। ১৫৭৫ খ্রিস্টাব্দে হযরত শাহ কামাল (রহ.) ও হযরত শাহ জামাল (রহ.) দুই ভাই ছিলেন, হযরত শাহ কামাল (রহ.) ছিলেন জ্যেষ্ঠ। প্রতি বছর বাংলা বৈশাখ মাসে অনুষ্ঠিত হয় বৈশাখী ওরস মেলা। পুরো মাস জুড়েই থাকে দেশ-বিদেশের অসংখ্য ভক্তের আগমন। হযরত শাহ কামাল (রহ.) তৎকালীন জমিদারের কাছে দুরমুঠে থাকার জায়গা চেয়েছিলেন। তাই মুসলিম দরবেশের সাথে পরিচয় করিয়ে দিলে জমিদার বললেন- আমার হুক্কা (তামাক) খাওয়ার সময় আপনি যতটা সম্ভব জায়গা নিতে পারেন।

এই সাধক জমিদারের কাছ থেকে এমন কথা শুনে অবিলম্বে দুরমুট থেকে ভারতের জিঞ্জিরাম নদীর উপর দিয়ে গেরদা পাহাড়ে প্রবাহিত ব্রহ্মপুত্র নদের জায়নামাজে দাঁড়িয়ে যান। বিকট শব্দে প্রার্থনায় দাঁড়িয়ে জমিদার চমকে উঠলেন। পরে, রাজার কথা অনুসারে, নিস্কর দুরমুথ থেকে জিঞ্জিরাম নদীর ওপারে ভারতের গেরদা পাহাড় পর্যন্ত জমি দেন। মহেন্দ্রগঞ্জ ভারতের তৎকালীন রাজা মহেন্দ্র নারায়ণের নামানুসারে নামকরণ করা হয় বলে জানা যায়। রাজকুমার ভগদেব প্রচণ্ড কষ্ট পেয়েছেন। বাদশাহ হযরত শাহ কামাল (রহ.)-কে তার ছেলের সুস্থতার জন্য দোয়া করতে বললেন। তিনি সঙ্গে সঙ্গে ভগদেবকে সুস্থ করে তোলেন। তখন বাদশা চোখের জল ফেলে হযরত শাহ কামাল (রহ.)-এর হাত ধরে মুসলমান হন। সেই সাথে এই দরবেশের নামে রাজ্যের ফরমানও লিখে দেন। এই সূত্রে ভারতে ওই জমির মালিক হযরত শাহ কামালের বংশধররা। হযরত শাহ জালাল (রহ.) ইসলাম প্রচারের জন্য তাঁর সকল শিষ্যকে বিভিন্ন এলাকায় প্রেরণ করেন। কিন্তু হযরত শাহ জামাল (রহঃ) এবং শাহ্ কামাল (রহঃ) দুই ভাইয়ের মধ্যে কোন অঞ্চল নির্ধারণ করেননি।

কিভাবে যাবেন।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয় এবং পুলিশের প্রধান পরিদর্শকের কার্যালয় জামালপুর শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত। জামালপুর রেলস্টেশন থেকে রিকশা বা ইজি সাইকেলে যাওয়া যায়। এটি জামালপুর শহরের ব্রক্ষপুত্র নদীর তীরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় এবং পুলিশ প্রধান পরিদর্শকের কার্যালয় এর কাছে অবস্থিত। অভয়ারণ্যটি এখন আধুনিক স্থাপত্য শৈলীতে উন্নীত করা হয়েছে। প্রতিদিন বহু ভক্ত এখানে তীর্থযাত্রা ও প্রার্থনার জন্য বিভিন্ন উদ্দেশ্যে আসেন। মাজার সংলগ্ন একটি সুন্দর মসজিদ যেখানে দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়া হয়।

Leave a Comment