জয়নুল আবেদিন জাদুঘর-ময়মনসিংহ

জয়নুল আবেদিন জাদুঘর শিল্পীর জন্মস্থান, ময়মনসিংহ জেলা শহরের সাহেব কোয়ার্টারে ব্রহ্মপুত্র নদীর তীরে এর কালজয়ী চিত্রকর্ম এবং বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে নির্মিত। শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদীন শুধু ছবি আঁকার জগতেই নয়, বাংলাদেশে শিল্প-সংস্কৃতি বা বিশুদ্ধ বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চার সঙ্গে জড়িত এই নামের সঙ্গে যুক্ত নেই এমন কাউকে খুঁজে পাওয়া বড় ভার। দেশ ও সমাজের অসংগতি, বৈষম্য ও সমসাময়িক বাস্তবতার বিভিন্ন চিত্রকে ছবির ভাষায় তুলে ধরেছেন সেই সব মানুষদের মধ্যে তিনি অন্যতম। তার ব্রাশের স্পর্শে ছবিগুলো জীবন্ত হয়ে উঠত। মোটকথা, তিনি ছিলেন ছবি আঁকার জগতে এক অতুলনীয় জাদুকর।

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন জাদুঘরটি শিল্পাচার্যের পরিচিত ও প্রিয় এই স্থানে নিজস্ব উদ্যোগে এবং জেলা প্রশাসনের সহায়তায় ১৫ এপ্রিল, ১৯৭৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। জাদুঘরটি উদ্বোধন করেন তৎকালীন উপরাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম। ১৯৮৭ সালে, যাদুঘরটিকে একটি দ্বিতল ভবনে উন্নীত করা হয়েছিল এবং নিচতলায় চিত্রগুলি প্রদর্শনীর জন্য দ্বিতীয় তলায় স্থানান্তরিত হয়েছিল। জয়নুল আবেদিন জাদুঘর ময়মনসিংহ শহরের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ। জাদুঘরটি ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে সাহেব জেলার নলিনী রঞ্জন সরকারের বাড়িতে অবস্থিত।

কিভাবে যাবেন:

ঢাকা থেকে ময়মনসিংহের দূরত্ব প্রায় ১৮০ কিলোমিটার। ঢাকা থেকে তিন ঘণ্টা লাগে। এ ছাড়া কিশোরগঞ্জ, জামালপুর, নেত্রকোনা, শেরপুর, ময়মনসিংহ হয়ে বাস চলাচল করে। আপনি চাইলে সেই বাসে চড়তে পারেন।

থাকার জন্য আবাসিক ও অনাবাসিক হোটেল রয়েছে। ভ্রমণ করতে চাইলে আশপাশের শহর থেকে সিএনজি বা লোকাল বাসে করে ময়মনসিংহের বিভিন্ন স্থান ঘুরে আসতে পারেন। রেলপথে রাজধানী ঢাকা থেকে প্রতিদিন সকাল থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত মোট ৭টি পোস্টাল ট্রেন ময়মনসিংহে আসে। ঢাকা থেকে ময়মনসিংহ ট্রেনের সময়সূচি। ৭০৭ তিস্তা এক্সপ্রেস। ঢাকা থেকে ছাড়ার সময়: ৭.২০ মি. আগমনের সময়: বিমানবন্দর ৭.৪৭ মি. জয়দেবপুর ৮.২০ মি. গোফরগাও- ৯.২৮ মি. ময়মনসিংহ- ১০.২৫ মি. এছাড়াও, ঢাকা থেকে ময়মনসিংহ পর্যন্ত প্রতিদিন ৩টি লোকাল ট্রেন রয়েছে। ময়মনসিংহে আপনি একটি অটোরিকশা নিয়ে সরাসরি জাদুঘরে যেতে পারেন।

এই বিষয়ে আরও তথ্য  জানতে  চাইলে এই লিংকে দেখতে পারেন।

আপনি যদি ভ্রমণ পিপাসু হয়ে থাকেন তাহলে আধুনিক স্থাপত্য, ঐতিহাসিক স্থান, নদী ও সমুদ্র সৈকত, পাহাড়ি অঞ্চল, বাগান ও বনাঞ্চল, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি ভ্রমণ স্থানগুলো নিচের লিংক হতে পাবেন।

 

আপনি সিলেট বিভাগ ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

Leave a Comment