করমজল পর্যটন কেন্দ্র – খুলনা

সুন্দরবনের কিছু আকর্ষণীয় স্থান যেমন কটকা, দুবলার চর, কচিখালী, নীলকল, ডোবেকি, শেখের টেক মন্দির, মান্দারবাড়িয়া সমুদ্র সৈকত, হারবাড়িয়া,  কালিরচর, মৃগামারিম সুপাতি প্রভৃতি। করমজলের উল্লেখ যোগ্য। এর মধ্যে করমজল পর্যটন কেন্দ্র প্রতি বছর সর্বোচ্চ সংখ্যক পর্যটক আসে। পশুর নদীর তীরে ৩০.০ হেক্টর আয়তনের এই আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্রটিকে সুন্দরবনের মডেল হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে।

যারা একদিনে সুন্দরবন ভ্রমণ করতে চান তাদের জন্য করমজল পারজোটন কেন্দ্র একটি আদর্শ স্থান। করমজল যেহেতু লঞ্চ/ট্রলারে করে মংলা থেকে মাত্র ৪৫ মিনিটের দূরত্বে, তাই দিনের পর দিন ফেরার সুবিধা এবং তুলনামূলকভাবে কম ভ্রমণ খরচের কারণে করমজল বেশিরভাগ পর্যটকদের কাছে সুন্দরবন ভ্রমণের শীর্ষ পছন্দ।

পর্যটন কেন্দ্রের শুরুতে একটি বড় মানচিত্র সুন্দরবন সম্পর্কে ভালো ধারণা দেয়। একটি আঁকাবাঁকা কাঠের ওয়াকওয়ে মানচিত্রটিকে পিছনে রেখে দক্ষিণে বনের দিকে নিয়ে যায়। ট্রেইলের নাম মাঙ্কি ট্রেইল। পথে এক কদম এগোলেই এই নামের অর্থ পাওয়া যায়। সুন্দরবনের অন্যতম বাসিন্দা রেসাস বানর, পুরো পথ জুড়েই দেখা যাবে।

 

রাস্তার দুই পাশে ঘন জঙ্গল। এই বনে পাইন গাছের সংখ্যা বেশি। কাঠের পথে কিছুদূর যাবার পর পাশের পথটি বাঁদিকে থেমে গেছে পশুর পাড়ে। নদীর শেষে একটি বেঞ্চ এবং একটি তাঁবু। প্রধান পথটি প্রায় আধা কিলোমিটার দক্ষিণে চলতে থাকে এবং একটি ছোট খালের পাড়ে এসে থামে। এখানে পথের শুরুতে আরেকটি ছায়া। সেখান থেকে, কাঠের পথটি আবার পশ্চিমে কুমিরের প্রজনন ক্ষেত্র অতিক্রম করে। এই পথের মাঝখানে একটি ওয়াচ টাওয়ার তৈরি করা হয়েছে। চূড়ায় পৌছালে করমজলের চারপাশ ভালোভাবে দেখা যায়।

কাঠের পথের একেবারে শেষ মাথায় কুমির প্রজনন কেন্দ্র। এর ঠিক পশ্চিমে হরিণ ও কুমিরের প্রজনন ক্ষেত্র। সামনে অনেক ছোট বাচ্চা। কিছু অল্পবয়সী, কিছু মাঝারি আকারের এবং কিছু সামান্য বয়স্ক নোনা জলের কুমির।

দক্ষিণ দিকের বিশাল দেয়াল ঘেরা পুকুরে রয়েছে রোমিও, জুলিয়েট এবং পিলপিল। মাছ ধরার জালে ধরা এই তিনটি নোনা জলের কুমিরকে ২০০২ সালে সুন্দরবনের কর্মজলে আনা হয়েছিল। রোমিও এবং জুলিয়েটের বয়স এখন ২৩। এই দম্পতি ২০০৫ সালে উর্বর হয়ে ওঠে। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে কুমিরের কৃত্রিম উৎপাদনে সবচেয়ে বড় অবদান তাদের। জুলিয়েট রোমিওর থেকে কিছুটা ছোট। নোনা পানির কুমিরের এই প্রজাতি আশি থেকে একশ বছর বেঁচে থাকে। জুলিয়েট এখন পর্যন্ত মোট ৪৮২টি ডিম দিয়েছে। সেখান থেকে, বন্যপ্রাণী প্রজনন ও সংরক্ষণ কেন্দ্রের কর্মীরা ২৮৪টি বাচ্চা ফুটিয়েছেন । পিলপিল করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন ও সংরক্ষণ কেন্দ্রের আরেক মহিলা সদস্য। এখন পর্যন্ত তিনি ৪৪টি ডিম দিয়েছেন, যার মধ্যে ৩৩টি ডিম ফুটেছে।

এর পাশে আপনি চিড়িয়াখানার মতো খাঁচায় ঘেরা একটি খোলা জায়গা দেখতে পাবেন। ভিতরে চিত্রা হরিণ। খাঁচার পশ্চিম কোণে আরেকটি ছোট খাঁচা আছে। ভিতরে কয়েকটি রেসাস বানর আছে। পর্যটকদের কাছে সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিষয় হলো বিকেলে করমজল এলাকায় দল বেঁধে বন্য চিত্রা হরিণের আগমন এবং পর্যটকদের হাত থেকে খাবার নেওয়া। করমজলে গিয়ে পর্যটকরা সহজেই সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ ইকোসিস্টেম সম্পর্কে ধারণা পেতে পারেন এবং সুন্দরবনের বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদ ও প্রাণীর সাথে পরিচিত হতে পারেন।

সহজে সনাক্তকরণের জন্য বিদ্যমান গাছের সাথে নামফলক সংযুক্ত করা হয়েছে।

টিকিট মূল্য:

করমজলে দেশি পর্যটকদের জন্য প্রবেশ ফি জনপ্রতি ২০ টাকা, বিদেশি পর্যটকদের জন্য ৩০০ টাকা। দেশি ছাত্রদের ২০ টাকা। দেশি গবেষক ৪০ টাকা। বিদেশী গবেষক প্রতি ৫০০ টাকা। অপ্রাপ্তবয়স্ক (বারো বছরের কম) ১০ টাকা। অভ্যন্তরীণ পর্যটকদের ভিডিও ক্যামেরা ব্যবহারের জন্য প্রতি ক্যামেরা ২০০ টাকা। বিদেশী পর্যটক ৩০০ টাকা। উপরের সমস্ত দাম ১৫ শতাংশ ভ্যাট সাপেক্ষে।

কিভাবে যাবেন:

রাজধানী ঢাকার গাবতলী ও সয়দাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে বাগেরহাট বাস বা কমলাপুর ট্রেনে প্রথমে খুলনা পৌঁছাতে হবে। ঢাকা থেকে সরাসরি বাসে করে বাগেরহাট পৌঁছানো যায়।

ঢাকা থেকে বাগেরহাট যাওয়ার বাসগুলির মধ্যে রয়েছে:

পর্যটক পরিবহন (01711131078), মেঘনা পরিবহন (0171717388553), সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যাচ্ছে। এছাড়া ঢাকার গাবতলী বাস স্টেশন থেকে বাস ছাড়ে- সাকুরা পরিবহন (01711010450), সোহাগ পরিবহন (01718679302)।

খুলনা থেকে রূপসা বা বাগেরহাট মংলা বন্দর থেকে লঞ্চ যাওয়া যায়। এছাড়া বাগেরহাটের মংলা, মোরেলগঞ্জ, শরণখোলা থেকে সুন্দরবনে যাওয়ার নৌকা পাওয়া যায়।

সুন্দরবন ও পর্যটন বাস ঢাকার সয়দাবাদ বাস স্টেশন থেকে সরাসরি মংলায় যায়। ভাড়া ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা। মংলা থেকে মটরবোটে করে করমজল যেতে হবে। দশ জনের উপযোগী একটি মোটরবোটের দাম ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা। এই মোটরবো

কোথায় থাকবেন?

পর্যটকবাহী জাহাজ বা নৌকা ছাড়াও, সুন্দরবন অভয়ারণ্যে হিরণপয়েন্টে নীলকমল এবং টাইগার পয়েন্টে কচিখালী ও কাটকে বন বিভাগের রেস্টহাউসে থাকার ব্যবস্থাও করে। নীলকমলে দেশীয় পর্যটকদের জন্য রুম জনপ্রতি ৩,০০০ টাকা, চার কক্ষের জন্য ১২,০০০ টাকা। কচিখালী প্রতি রুম ৩০০০ টাকা, চার রুম ১০ হাজার টাকা। কটকে রুম প্রতি দুই হাজার টাকা, রুম প্রতি দুই হাজার টাকা। বিদেশিদের ক্ষেত্রে নীলকমলে ৫ হাজার ২০ হাজার টাকা, কচিখালীতে ৫ হাজার ও ১৫ হাজার টাকা এবং কটকায় ৫ হাজার ১০ হাজার টাকা।

তাছাড়া সারাদিন করমজলে কাটিয়ে সন্ধ্যায় বন্দরনগরী মংলায় চলে আসতে পারেন। এখানে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের মোটেল পাসুর (04662-75100)।

খুলনা মহানগরীতে মানসম্পন্ন হোটেলের পাশাপাশি রয়েছে হোটেল রয়্যাল, হোটেল টাইগার গার্ডেন,  ক্যাসেল সালাম, হোটেল ওয়েস্ট ইন, হোটেল সিটি ইন, হোটেল মিলেনিয়াম ইত্যাদি।

দ্রষ্টব্য: বন রক্ষী ছাড়া বনে প্রবেশ করবেন না। হরিণ ও কুমির প্রজনন কেন্দ্রে পশুদের খাওয়াবেন না।

Leave a Comment