কচিখালী সমুদ্র সৈকত – বাগেরহাট

সুন্দরবনের কচিখালী সমুদ্র সৈকত শরণখোলা রাঞ্চে কটকা নদীর পূর্ব তীরে কচিখালী । নদীর ওপারে অনেক পর্যটন কেন্দ্র ও অভয়ারণ্য রয়েছে। বনে নানা প্রজাতির হরিণ, গাছে গাছে হাজার হাজার পাখি। আকাশে অবাধে ডানা মেলে উড়ে। ডলফিন ও কুমির মাঝে মাঝে পানিতে ভেসে বেড়ায়। এই দৃশ্যগুলো দেখে হৃদয় বিদারক। সুন্দরবনে যত পর্যটকই আসুক না কেন, কচিখালী দেখার একটা সুপ্ত বাসনা তাদের মনে থেকে যায়।

কিন্তু বেশিরভাগ পর্যটকই সাধ্য হয় না অত্যাশ্চর্য প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সুন্দরবনের কচিখালী সমুদ্র সৈকত দেখার। কারণ মংলা থেকে লঞ্চে যেতে সময় লাগে ৮ থেকে ১০ ঘণ্টা। একটি কাঠের ট্রলারে ১২ ঘন্টার বেশি সময় লাগে। এছাড়াও, বন বিভাগ পর্যটকদের কাঠের ট্রলারে সেখানে যেতে দেয় না। প্রতিটি নৌযানেই আকাশ-উচ্চ হারে ভাড়া। প্যাকেজ ট্যুরের খরচ পড়বে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা। তারপরও কচিখালীতে পর্যটকের কমতি নেই। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে দলে দলে তারা এখানে আসে। যখন একটি দম্পতি একসাথে একটি লঞ্চ ভাড়া করে, তারা কিছুটা মানসিক শান্তি নিয়ে ভ্রমণ করে। বেশিরভাগ পর্যটকই কটকা-কচিখালীতে ওই পথেই যান। বিদেশি পর্যটকরা সুন্দরবনে এলে কটকা-কচিখালীতে যান। কারণ এখানকার সৌন্দর্য বনের অন্য যেকোনো পর্যটন কেন্দ্রের চেয়ে বেশি সুন্দর।

কটক-কচিখালী দেশের সর্বদক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের তীরে অবস্থিত। সমুদ্রে পরিণত হওয়া কটকা নদীর মুখে ডলফিন ও শুশুকের অবিরাম খেলা। মাঝে মাঝে কটকা নদীতে কুমিরও ভেসে বেড়ায়। হাজার হাজার হরিণ পর্যটকদের আনন্দে মুখরিত করে তোলে। বনের গাছে ও পাতায় ফুল ও ফল ফোটে। পশুর, সুন্দরী, বাইন,কেওড়া,  আমুর গাছে এখন ফল আসছে। এবং অন্যান্য গাছ এবং লতা বিভিন্ন রঙে ফুল ফোটে। যেন পুরো সুন্দরবন ফুলের বাগান। এই বাগানটি প্রকৃতি নিজেই তৈরি করেছে। পর্যটকরা অসংখ্য নদীপথে ঘুরে ঘুরে এমন সুন্দর প্রকৃতি উপভোগ করেন।

স্থানীয় জেলেরা জানান, কচিখালীতে অনেক বাঘের আনাগোনা রয়েছে। জেটি থেকে প্রথমে সোজা ফরেস্ট অফিসের দক্ষিণে ঘন জঙ্গল। ভিতরে মিঠা পানির পুকুর। এই বনের শেষ প্রান্তে সমুদ্র সৈকত। পশ্চিম পাশের ঘন জঙ্গলে বানর, হরিণ, কুমির, শুয়োর, বন মোরগ, অজগর সাপসহ বিভিন্ন বন্যপ্রাণী লক্ষ্য করা যায়। এই স্থানের ঠিক উত্তরে, একটি খাল বনের মধ্য দিয়ে সোজা পশ্চিমে চলে গেছে। কিছুটা অভ্যন্তরীণ, এই খালের জল সারা বছরই স্বচ্ছ থাকে।

কিভাবে যাবেন:

কচিখালী যাওয়ার প্রধান এবং একমাত্র পথ লঞ্চ। আর পর্যটকদের নিয়ে এই লঞ্চটি কটকা চ্যানেলে নোঙর করা হয়। রাজধানী ঢাকার গাবতলী ও সয়দাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে বাগেরহাট বাস বা কমলাপুর ট্রেনে প্রথমে খুলনা পৌঁছাতে হবে।

ঢাকা থেকে সরাসরি বাসে করে বাগেরহাট পৌঁছানো যায়। ঢাকা থেকে বাগেরহাট পর্যন্ত চলাচলকারী বাসগুলোর মধ্যে রয়েছে মেঘনা পরিবহন (0171717388553),  সাকুরা পরিবহন (01711010450), সোহাগ পরিবহন (01718679302)। এছাড়াও ঢাকার গাবতলী বাস টার্মিনাল সায়েদাবাদ বাস স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া পর্যটক পরিবহন (01711131078)  থেকে বাস ছাড়ে  খুলনা থেকে রূপসা বা বাগেরহাট মংলা বন্দর থেকে লঞ্চ করা হবে। এছাড়া মোরেলগঞ্জ,বাগেরহাটের মংলা,  শরণখোলা থেকে সুন্দরবনে যাওয়ার নৌকা পাওয়া যায়।

কোথায় থাকবেন?

পর্যটন কারুকাজ বা নৌকা ছাড়াও, সুন্দরবনের অভয়ারণ্যে হিরণ পয়েন্টের নীলকমল এবং টাইগার পয়েন্টে কচিখালী এবং কটকে বন বিভাগের থাকার জন্য ব্যবস্থা  রয়েছে। এছাড়া সুন্দরবনের পাশে সাতক্ষীরা শহরে একক, পারিবারিক ও গ্রুপ থাকার ব্যবস্থা এবং মুন্সীগঞ্জ, শ্যামনগরে এনজিও সুশীলনের রেস্টহাউস ও ডরমেটরি রয়েছে।

আবাসনের জন্য মংলায় রয়েছে পর্যটন ব্যবসার হোটেল, পর্যটকদের জন্য পশুর বন্দরে সাধারণ হোটেল। খুলনা মহানগরীতে মানসম্পন্ন হোটেলের পাশাপাশি রয়েছে ক্যাসেল সালাম, হোটেল রয়্যাল, হোটেল সিটি ইন, হোটেল টাইগার গার্ডেন, হোটেল ওয়েস্ট ইন, হোটেল মিলেনিয়াম ইত্যাদি।

 

আপনি রাজশাহী জেলার ভ্রমণ স্থানগুলো দেখতে পারেন।

আরও জানতে দেখুন:  এই অংশে দেখতে পারেন।

Leave a Comment