উত্তরা গণভবন – নাটোর

দিঘাপতিয়া রাজবাড়ী বা উত্তরা গণভবন বাংলাদেশের নাটোর শহর থেকে প্রায় আড়াই কিলোমিটার দূরে প্রাক্তন দিঘাপতিয়া মহারাজাদের বাসভবন এবং উত্তরে বর্তমান উত্তরা গণভবন বা গভর্নমেন্ট হাউস।

বেশিরভাগ প্রাসাদ এবং কিছু সংলগ্ন ভবন রাজা দয়ারাম রায় দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। রাজবংশের ষষ্ঠ রাজা প্রমদা নাথ রায়ের শাসনামলে তিনি ১৮৯৭ সালের ১০ জুন নাটোরের ডোমপাড়া মাঠে বঙ্গীয় প্রাদেশিক কংগ্রেসের তিন দিনের অধিবেশন আহ্বান করেন। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরসহ অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তি এ অধিবেশনে  আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে অংশ নেন। অধিবেশনের শেষ দিনে, ১২ জুন, প্রায় ১৮ মিনিট স্থায়ী একটি বিধ্বংসী ভূমিকম্পে প্রাসাদটি ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। পরে রাজা প্রমদা নাথ রায় ১৮৯৭ থেকে ১৯০৮ সাল পর্যন্ত ১১ বছর ধরে বিদেশী বিশেষজ্ঞ, প্রকৌশলী এবং চিত্রশিল্পী এবং স্থানীয় কারিগরদের সহায়তায় সাড়ে ৪১ একর জমিতে প্রাসাদটি পুনর্নির্মাণ করেন।

সাড়ে ৪১ একর প্রাসাদটি পরিখা ও উঁচু দেয়াল দিয়ে ঘেরা। প্রাসাদের পূর্বদিকে একটি চারতলা পিরামিড আকৃতির প্রবেশদ্বার যা শীর্ষে সংকীর্ণ এবং এতে একটি ঘড়ি রয়েছে। মধ্যযুগীয় বাংলাদেশের অন্যান্য সামন্ত প্রাসাদের মতো, নাটোরের প্রাসাদের একটি দীর্ঘ প্রবেশপথ রয়েছে যা একটি অগোছালো বোতল পাম দিয়ে সারিবদ্ধ। নাটোরের ঐতিহাসিক দিঘাপতিয়া রাজবাড়ী এখন উত্তরা গণভবন। প্রায় তিনশ বছরের পুরনো দিঘাপতিয়া রাজবাড়ীটি নাটোরের উত্তরা গণভবন নামে পরিচিত। নাটোরের দিঘাপতির উত্তরা গণভবন বাংলাদেশের প্রাচীন ঐতিহাসিক নিদর্শনগুলোর একটি। দিঘাপতিয়া রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন দয়ারাম রায়। তিনি নাটোরের রাজা রামজীবনের অনুগত একজন দেওয়ান ছিলেন। যেহেতু দয়ারাম রায় নাটোর রাজের উত্থানে অসামান্য ভূমিকা পালন করেছিলেন, তাই রাজা রামজীবন ১৭০৬ সালে তাকে তার বাসভবনের জন্য দিঘাপতিয়ায় কিছু জমি দান করেছিলেন। জমিদার এবং রাজা হওয়ার পর, দয়ারাম রাজ ১৭৩৪ সালে দিঘাপতিয়া রাজবংশ প্রতিষ্ঠা করেন।

উত্তরা গণভবনের প্রবেশপথের বিশাল গেটটি আসলে একটি বিশালাকার পাথরের ঘড়ি। সেই সময় রাজা দয়ারাম ইংল্যান্ড থেকে ঘড়িটি ফিরিয়ে এনেছিলেন। ঘড়ির পাশে একটা বড় ঘণ্টা। একসময় এই ঘণ্টা দূর থেকে শোনা যেত। প্রাসাদে অনেক পুরানো এবং বিরল প্রজাতির গাছ রয়েছে। ঢাকা জাতীয় স্মৃতিসৌধের শোভা বর্ধনকারী ফুল ব্রাউনিয়া এবং ককেশিয়া এখানে রয়েছে। অন্যান্য গাছের মধ্যে রয়েছে রাজ-অশোক,  নীলমনিলতা, সৌরভি, পারিজাত, হাপবমালী, কর্পূর, হরিতকি, যস্তিমধু, মাধবী, মিকাস, হৈমন্তী, তারাঝারা, এবং অন্যান্য দুর্লভ ফল ও ঔষধি গাছ। রাজপ্রাসাদে পরিখা বা লেকের পাড়ে এসব গাছের জাঁকজমক।

রাজপ্রাসাদের প্রবেশপথটি একটি পরিখা দিয়ে ঘেরা যা পুরো প্রাসাদটিকে ঘিরে রেখেছে। ভিতরে বিশাল মাঠ আর একপাশে গণপূর্ত অফিস সহ গোলাপ বাগান। দুই তলা হলুদ ভবনটি কুমার প্যালেস নামে পরিচিত। নিচতলা টর্চার সেল হিসেবে ব্যবহৃত হতো। এক তলায় তহসিল অফিস আছে। সেই সময়ের চারটি বন্দুক দেখা গেছে। বন্দুকগুলি ১৭৯৯ সালে স্থাপনকাল করা হয় । বিশাল রাজপ্রাসাদের পাশের বাগানে জমিদার দয়ারামের একটি ভাস্কর্য তার স্মৃতির প্রতীক। একটি অডিটোরিয়াম ভবনসহ প্রাসাদে আরও দুটি ভবন রয়েছে। পার্কিং গ্যারেজ আলাদা। সব স্থাপনার মাঝখানে। প্রাসাদের অভ্যন্তরে বিভিন্ন বাসনপত্র রয়েছে। ভবনটিতে একটি যাদুঘর, অনেক স্মৃতিস্তম্ভ, ভাস্কর্য এবং সুন্দর স্থাপত্য রয়েছে।

উত্তরা গণভবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল ইতালিয়ান গার্ডেন। বাগানের আসবাবপত্র এনেছিলেন ইতালির রাজা দয়ারাম। হাতে ছিপ নিয়ে কালো মার্বেল পাথরের মূর্তিটি চমৎকার। বেঞ্চগুলো এসেছে কলকাতা থেকে। পাহাড়ি কুমারী পাথরের মূর্তির একটি হাত ভেঙে গেছে। কব্জি সোনা দিয়ে বাঁধা ছিল। রাণীর চা ঘর এখানে অতুলনীয়।

উত্তরা গণভবনের মাঠে গোলপুকুর,  শ্যামসাগর, কাছারিপুকুর, পদ্মপুকুর, কালিপুকুর ও কেষ্টজির পুকুর নামে ছয়টি পুকুর রয়েছে। তাছাড়া গণভবনের ভেতরের চারপাশে রয়েছে প্রশস্ত পরিখা। প্রতিটি পুকুরে সানবাঁধানো  বেশ কয়েকটি ঘাট রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে মেরামত না করায় পুকুরগুলো ভরাট হয়ে গেছে। ঘাটগুলো টুকরো টুকরো হয়ে গেছে। আম, কাঁঠাল, ব্ল্যাকবেরি, মেহগনি, লিচি, তাল এবং চন্দন সহ এই প্রাচীন অবকাঠামোর চারপাশে বিরল প্রজাতির গাছ লাগানো হয়েছিল। অযত্ন ও অবহেলার কারণে ইতোমধ্যে অনেক গাছ বিলুপ্ত হয়ে গেছে।

উত্তরা গণভবনের নামফলক:

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর দিঘাপতির শেষ রাজা প্রতিভা নাথ রায় দেশ ত্যাগ করেন। এরপর থেকে দিঘাপতিয়া রাজবাড়ী পরিত্যক্ত। প্রাসাদটি ১৯৬৫ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার কিনেছিল। ২৪ জুলাই, ১৯৬৭ সালে এটি তৎকালীন গভর্নর হাউসে রূপান্তরিত হয়। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান এটিকে উত্তরা গণভবন হিসেবে ঘোষণা করেন। তিনি ১৯৭২ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভার বৈঠক আহ্বান করেন। এরপর  থেকে এই ভবনটি ‘উত্তরা গণভবনের’ নামে পরিচিত।

Leave a Comment